সকাল-বিকেল জিম্বাবুয়ে ‘মাঝে বাংলাদেশ’

0 191

স্পোর্টস ডেস্ক: মিরপুর টেস্টের সকালটা যদি হয় সফরকারী জিম্বাবুয়ের তবে বাকি দিনটা বাংলাদেশের! হ্যাঁ, কথাটা এভাবেই লিখা যেতো। কিন্তু দিনের শেষ ৬ ওভারে ২ উইকেট হারানোয় ভোল বদলেছে কথায়ও। এখন বরং বলা যায় সকাল আর বিকেলটা জিম্বাবুয়ের, মাঝের গোটা দিনটা বাংলাদেশের। মুমিনুলের সপ্তম ও মুশফিকের ষষ্ঠ সেঞ্চুরিতে তিনশো রানের স্বস্তি নিয়েই দিন শেষ করেছে টিম টাইগারস।

দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের শেষ টেস্টে মিরপুর শের-ই বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে টসে দিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ২৬ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর সিদ্ধান্তটা সঠিক ছিল কিনা তা নিয়ে সংশয় জেগেছিল।

তবে মাথাটা একটু ঠান্ডা রাখলে তাড়াহুড়োগুলো বাদ দিলে রান তোলা যে কঠিন কিছু নয় ২৬৬ রানের জুটি গড়ে দিন শেষে সেটি আরও একবার প্রমাণ করলেন মুশফিকুর রহিম ও মুমিনুল হক। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এটি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ইনিংস। এমনকি চতুর্থ উইকেট জুটিতেও সর্বোচ্চ।

এদিন ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে এসে দলীয় মাত্র ১৩ রানে ব্যক্তিগত শূণ্য রানে ইমরুল কায়েস আউট হয়ে সাজঘরে ফিরেন। কাইল জার্ভিসের বলে চাকাবার হাতে ক্যাচ দেন ওয়ানডেতে দারুণ খেলা ইমরুল। নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি আরেক অপেনার লিটন দাসও। দলীয় ১৬ রানে ব্যক্তিগত ৯ রান করে মাভুটার হাতে ক্যাচ দিয়ে জার্ভিসের দ্বিতীয় শিকার হন তিনি।

নাজমুল হোসেন শান্তর পরিবর্তে দলে জায়গা পেলেও আস্থার প্রতিদিন দেয়নি মোহাম্মদ মিঠুনের ব্যাটও। দলীয় ২৬ রানে তিরিপানোর বলে টেইলরের তালুবন্দি হন শূণ্য রান করা মিঠুন। এরপরই ২৬৬ রানের রেকর্ড জুটিতে মুমিনুল-মুশফিকের প্রতিরোধ।

২৬ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াইটা সহজ ছিল না। কিন্তু প্রতিজ্ঞাবদ্ধ দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মুশফিক আর মুমিনুল সেই ‘কঠিনেরে ভালোবেসেই’ যেন সামনে এগিয়ে নিচ্ছিলেন বাংলাদেশকে।

প্রথম সেশনের ১১ ওভার ও শেষ সেশনের ৬ ওভার বাদ দিলে মাঝের ৭৩টি ওভারে আধিপত্য ছিল স্বাগতিকদের। মুমিনুলের ১৬১ রানের ইনিংসটি সাজানো ছিল ১৯টি চারে। দলীয় ২৯৯ রানে দিনের শেষ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। জার্ভিসের তৃতীয় শিকার হন তাইজুল ইসলাম (৪)।

অপরদিকে দিনশেষে ১১১ রান নিয়ে অপরাজিত আছেন মুশফিক। দিনের শেষ ওভারে নন স্ট্রাইকে দাঁড়ানো অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে এদিন কোনও বল মোকাবিলা করতে হয়নি। এই দুজনেই দ্বিতীয় দিন বাংলাদেশকে টানতে চাইবে বড় সংগ্রহের দিকে।

তবে দিনজুড়ে টাইগারদের আধিপত্য থাকলেও মুমিনুলের আউট নিয়ে আক্ষেপ থাকছেই। যদি শেষ কয়েকটি ওভার কাটিয়ে দেয়া যেতো যদি মুমিনুল আউট না হতেন তবে যে দ্বিতীয় দিনটিও বাংলাদেশ শুরু করতে পারতো দুই সেঞ্চুরিয়ান ব্যাটসম্যানে।

বিডি সংবাদ টোয়েন্টিফোর ডটকম/

Leave A Reply

Your email address will not be published.