সাপাহারে বোরো চাষে ব্যাস্ততার ধুম পড়েছে কৃষকদের মাঝে

0 127

মনিরুল ইসলাম, সাপাহার (নওগাঁ) প্রতিনিধি: কৃষি নির্ভরশীল এলাকা হিসেবে ইতমধ্যে দেশে খ্যাতি অর্জন করেছে নওগাঁ জেলার সাপাহার উপজেলা। এরই ধারাবাহিকতায় এই অঞ্চলে বিভিন্ন জাতের কৃষিপণ্য চাষাবাদ হয়। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো বোরো ধান চাষ। 

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

 

গত মৌসুমে কৃষক ধানের দাম আশানুরূপ পাওয়ার ফলে এবার নওগাঁর সাপাহারে ব্যাপক উৎসাহ নিয়ে বোরো ধান চাষ করছে এলাকার চাষীরা। চলতি মৌসুমে বোরো ধান লাগানোর জন্য জমি প্রস্তুত ও ধানের চারা রোপনে ব্যাস্ত সময় পার করছেন এলাকার চাষীরা। সকালের তীব্র শীতকে উপক্ষো করে সন্ধ্যা পর্যন্ত ধান রোপনে ব্যাস্ততার মাঝে সময় অতিবাহিত করছেন চাষীরা।

 

এলাকা ঘুরে দেখা যায়, কেউ জমির আইলে কোদাল দিয়ে জমি তৈরী কিংবা জৈব সার বিতরণ কাজে ব্যস্ত। কেউ সেচের জন্য ড্রেন নির্মাণ কিংবা পাম্পের বা শ্যালো মেশিনের চালানোর পরিবেশ তৈরী করছেন। আবার অনেকে তৈরি জমিতে পানি সেচ দিয়ে ভিজিয়ে রাখছেন। আনুষাঙ্গিক কাজ শেষ করে কেউ বা বীজতলা থেকে চারা তুলে তা রোপণ করছেন ক্ষেতে।বোরো ধান আবাদের জন্য এলাকার কৃষকেরা যেন প্রতিযোগীতায় নেমেছেন।

 

গত মৌসুমে ধানের বাম্পার ফলন ও ন্যায্য মূল্য পাওয়ার ফলে এ বছরে বোরো ধান চাষে অধিক আগ্রহ লক্ষ্য করা গেছে কৃষকদের মাঝে। অন্যান্য বছর কোল্ড ইনজুরিতে পচন লেগে বীজ চারা নষ্ট হয়ে যেতো। কিন্তু এবছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় বোরো চারাও বেশ ভালো হয়েছে বলছেন চাষীরা।

 

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এ বছরে চলতি মৌসুমে উপজেলার মোট ৮ হাজার ৪ শত ৫০ হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকার ফলে এ মৌসুমে প্রতি হেক্টরে ফলন হতে পারে ৬ দশমিক ৫০ মেট্রিক টন। চলতি মৌসুমে ধানের চারার রোগ বালাই না থাকার ফলে চাষাবাদে অনূকলতা এনেছে বলে জানান উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিপ্তর।

 

সব মিলিয়ে গত বছরের ন্যায় চলতি বছরে ধানের দাম ভালো থাকলে এবং আবহাওয়ার পরিবর্তন না হলে খুব শিগগিরই বোরো ধান রোপণ শেষ হবে এবং কৃষকেরা কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন এলাকার বোরো চাষীরা।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.

x