৪ মাস বেতন ভাতা থেকে বঞ্চিত ঠাকুরগাঁওয় সুগারমিলের শ্রমিক কর্মচারীরা দ্রুত সমাধানের আশ্বাস কর্তৃপক্ষের

639

আল মাহামুদুল হাসান বাপ্পি, ঠাকুরগাঁও : ঠাকুরগাঁও জেলায় উল্লেখযোগ্য ভারী শিল্প কারখানা বলতে এখানকার একমাত্র সুগার মিলটিকেই বোঝানো হয়্। শুরুর দিকে লাভের মুখ দেখলেও পরবর্তীতে এটি একটি বড় ধরনের লোকসান ক্ষাতে পরিনত হয়। যার দরুন এ প্রতিষ্ঠানে বেশির ভাগ সময়েই শ্রমিকদের বেতন ভাতা নিয়ে নানা ধরনের জটিলতার সৃষ্টি হয়।

শ্রমিকদের বেতন ভাতা নিয়ে জটিলতা আবারো সৃষ্টি হয়েছে এ প্রতিষ্ঠানটিতে। প্রায় ৪ মাস ধরে বেতন ভাতা থেকে বঞ্চিত এখানকার ৮ শ ৪৪ জন স্থায়ী ও মৌসুমী শ্রমিক কর্মচারীরা। বঞ্চিত এসব শ্রমিকদের মধ্যে স্থায়ী শ্রমিক রয়েছে ৪ শ ৮০ জন এবং মৌসুমী শ্রমিক রয়েছে ৩ শ ৬৩ জন।

সুগারমিলের আব্দুস সামাদ নামের একজন স্থায়ী শ্রমিক জানান, ৪ মাস ধরে আমাদের বেতন ভাতা বন্ধ থাকার কারনে আমাদের সংসার চালাতে হিমসিম খেতে হচ্ছে। জানিনা আরো কতদিন এভাবে থাকতে হবে।
সাইফুল আলম নবাব নামের আরেক স্থায়ী শ্রমিক জানান, আগে না হয় বেতন ভাতা পাইনি, কিন্তু সামনে ঈদ আসছে। বেতন ভাতা না পেলে আমরা ছেলে মেয়েদের নিয়ে কিভাবে ঈদ করবো তা জানিনা।

ঠাকুরগাঁও সুগারমিল শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি উজ্জল হোসেন জানান, আমার এখানে ৮শ শ্রমিক কাজ করছে। তারা দীর্ঘদিন ধরে বেতন ভাতা না পেয়ে নানা সমস্যায় পড়ছে। খুব কষ্ট করেই তাদের সংসার পরিচালনা করছে। সরকার এবং কর্তৃপক্ষ স্বুনজর দিলে এ সমস্যা খুব শিগ্রই কাটিয়ে ওঠা সম্বব হবে ।

ঠাকুরগাঁও সুগার মিলের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক আব্দুস শাহী জানান, নানা সমস্যায় জর্জরিত আমাদের এ শিল্পকারখানাটি। অতীতেও এ ধরনের সমস্যায় বারবার পড়তে হয়েছে আমাদের। তবে প্রতিবারই আমরা এ সমস্যা থেকে উঠে দাড়িয়েছি। এবার যে সমস্যা হয়েছে তা আমরা সমাধানের চেষ্টা করছি। ইতোমধ্যেই আমরা কিছু শ্রমিক কর্মচারীদের তাদের বেতন ভাতা দিতে শুরু করেছি। আশা করি আগামী ঈদের আগেই সবার বেতন ভাতা শতভাগ দিতে আমরা সক্ষম হবো।

x