পুঠিয়ায় ইট ভাটার নির্গত ধোয়ায় আমের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি, হতাশ কৃষক

২৬৪

নিজস্ব প্রতিবেদক :  রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার আমের পরিচিত সারাদেশেই। এমনকি দেশের গন্ডী পেরিয়ে বিদেশের মাটিতেও এ আমের সুনাম রয়েছে। পুঠিয়ার আম বলতেই যেন অনেকের কাছে আলাদা একটা কদর পাওয়া যায়। পুঠিয়া উপজেলাবাসীও এই আম নিয়ে নানা স্বপ্ন গেঁথে থাকে। আমের উপরে নির্ভর করে এখানকার অর্থনীতির একটি বড় অংশ এবং অনেকের রুজি রোজগার। কিন্তু এ বছর অনেকগুলো কৃষক ও ব্যাবসায়ীদের এ সপ্ন নষ্ট হতে চলেছে।

সরকারী নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে পুঠিয়া উপজেলার বানেশ্বর ইউনিয়নের দিঘলকান্দি এলাকায় গড়ে উঠা ইট ভাটার বিরুপ প্রভাবে ভাটা সংলগ্ন জমির আম বাগানের আম নষ্ট হয়ে গেছে । এতে করে আম চাষীদের ক্ষতি হয়েছে লাখ লাখ টাকার। আর এ ক্ষতিতে আম চাষীদের মাথায় হাত পড়েছে। বাগান মালিক পথে বসতে বসেছে। দিশেহারা হয়ে পড়ছেন দিঘলকান্দি এলাকার আম বাগান মালিক সোলেমান ।

দিঘলকান্দি গ্রামের আম বাগান মালিক সোলেমান জানান, এই দিঘলকান্দি এলাকার ছয়মুদ্দিনের ছেলে শাহাবুদ্দিন সরকারি নিয়মনীতি না মেনে দীর্ঘদিন ধরে এই ইট ভাটা পরিচালনা করে আসছে। এই অবৈধ ইট ভাটার নির্গত ধোয়ার কারনে আমার বিভিন্ন জাতের প্রায় ৬০ টি আম গাছের সব আম ধোয়ার কারণে পচন ধরে সব আম নষ্ট হয়ে গেছে এতে করে আমার প্রায় ৩ লক্ষ টাকার আম পচে ক্ষতি হয়েছে।

এই ইট ভাটা থেকে নির্গত ধোঁয়া ও তাপের কারনে তার ৫ বিঘা জমির আম বাগানের আমে কালো দাগ হয়ে পচে নষ্ট হয়ে গেছে। ইট ভাটার মালিক রইমুদ্দিন জানান, বেশিদিন আগে থেকে না সকাল থেকেই এই ভাটার ধোয়ার কারণেই এমন হয়েছে বলে তিনি শিকার করেন।

দিঘলকান্দি ওয়ার্ডের মেম্বার আতাউর রহমান জানান, তার ৫ বিঘা জমির আম বাগানের সমস্ত আম ইট ভাটার নির্গত ধোয়ায় নষ্ট হয়ে গেছে। আমরা সরজমিনে গিয়ে দেখেছি একটা আমও ভালো নেই। ইট ভাটার বিরুপ প্রভাবের কারনে এসব আম বাগানের আমগুলো নষ্ট হয়ে গেছে।

শুধু আম না, ইটের ভাটার ধোঁয়ার কারনে সব রকমের ফল ও ফসলের ক্ষতি হচ্ছে। বানেশ্বর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল রাজ্জাক দুলাল জানান, আমাকে অভিযোগ দেওয়ার পরে আমি সরেজমিনে আম বাগানে গিয়েছিলাম ইট ভাটার কারণে আমের অনেক ক্ষতি হয়েছে। মালিক পক্ষ বিষয়টি শিকার করেছে এবং তারা মিমাংসা করার জন্য প্রস্তাব দিয়েছে।

এব্যাপারে পুঠিয়া উপজেলা কৃষি অভিসার শামসুন নাহার ভূইয়া বলেন, আমাকে এই বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে আমরা সরেজমিনে গিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেব।

Comments are closed.