‘অস্তিত্বের ওপর হুমকি’ এলে পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার : রাশিয়া

১৭৫
ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ। ছবি : রয়টার্স

রাশিয়া কেবল তখনই পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করবে, যখন দেশটির ‘অস্তিত্বের ওপর হুমকি’ আসবে। তবে ইউক্রেন অভিযানে সে সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ।

গতকাল সোমবার মার্কিন সংবাদমাধ্যম পাবলিক ব্রডকাস্টিং সার্ভিসের (পিবিএস) কাছে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে পেসকভ একথা জানান।

গত সপ্তাহে পারমাণবিক অস্ত্র বিষয়ে বক্তব্য রাখলেও এবার বিষয়টিকে আরও একটু খোলাসা করেছেন পেসকভ। খবর রয়টার্সের। এদিকে আজ মঙ্গলবার মার্কিন সংবাদ সংস্থা সিএনএনের এক প্রতিবেদনে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা গেছে।

পেসকভ বলেন, ‘অবশ্যই, এই অভিযানের (ইউক্রেনে চলমান সামরিক অভিযান) কোনো সম্ভাব্য পরিণতি পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের কারণ হবে না।’

‘আমাদের নিরাপত্তা সম্পর্কে একটি মতবাদ আছে, যেখানে পরিষ্কারভাবে বলা আছে কখন আমাদের রাষ্ট্রের অস্তিত্বের ওপর হুমকি সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাবে। সে ক্ষেত্রে আমরা চাইলে পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করে আমাদের অস্তিত্বের ওপর আসা হুমকিকে ধ্বংস করতে পারি এবং প্রয়োজনে আমরা তা করবো,’ যোগ করেন পেসকভ।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে ‘কসাই’ বলে অভিহিত করা এবং ‘তাঁর আর ক্ষমতায় থাকা উচিত নয়’ মন্তব্য নিয়ে জানতে চাওয়া হলে পেসকভ বলেন, ‘এটি বেশ উদ্বেগজনক।’

‘এটি ব্যক্তিগত আক্রমণ। এটি একেবারেই গ্রহণযোগ্য নয়। রুশ ফেডারেশনের প্রেসিডেন্ট কে থাকবেন বা ভবিষ্যতে এ পদে কে আসবেন, সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাজ নয়,’ যোগ করেন তিনি।

ইউরোপে সফররত বাইডেন গত শনিবার পোল্যান্ডে ইউক্রেনীয় শরণার্থীদের সঙ্গে দেখা করার পর পুতিনকে নিয়ে মন্তব্য করেন, ‘এই মানুষটার ক্ষমতায় থাকা উচিত নয়।’

বাইডেনের এই মন্তব্যের পর ক্রেমলিনের পক্ষ থেকে জানানো হয় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া, যার প্রতিধ্বনি পাওয়া গেছে পেসকভের সাম্প্রতিক সাক্ষাৎকারেও।

তবে হোয়াইট হাউস এরপর থেকে উত্তেজনা কমানোর চেষ্টা করছে।

Comments are closed.