কয়েক দিনের টানা বৃষ্টিতে অতিষ্ঠ জন জীবন

0 ৬৭৯
প্রতিকী ছবি

মাজহারুল ইসলাম, রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের রৌমারী ও রাজিবপুরে কয়েকদিনের টাকা বৃষ্টিতে বিছিন্ন গ্রামীণ রাস্তাঘাট। এমনিতে জনগণের চলাচলের গ্রামীণ কাচা রাস্তা গুলো কাঁদায় পরিনত হওয়ায় চরম দূর্ভোগে গ্রামের মানুষ গুলো। রৌমারী উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নের প্রায় গ্রামীণ রাস্তা জরাজীর্ণ অবস্থায় খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে এউপজেলার প্রায় আড়াই লাখ মানুষ।

প্রধান মন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বলছেন গ্রাম হবে শহর, তবে উন্নয়নের আওতায় পরেনি এঅঞ্চলের মানুষ গুলো।  অপরদিকে রৌমারী উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকা গুলো বরাবরই অবহেলিত বৃষ্টি হলেই রাস্তায় বেরুতে পাড়ে না এঅঞ্চলের জনগণ। দেশ স্বাধীনের ৫০ বছর অতিবাহিত হলেও এদিকে নজর দেয়ার সময় জোটেনি কারই । শুধু ভোটের সময় আসলেই জনপ্রতিনিধিরা ভোটের স্বার্থে আসেন ভোট চাইতে।
গ্রামীণ জরাজীর্ণ রাস্তার ব্যাপারে সমন্বয় সভায় শতবার আলোচনা করেও আমলে নিচ্ছেন না কেউ। এমন অভিযোগ উপজেলার ২০৯টি  বিছিন্ন গ্রামের মানুষ গুলোর । কে শুনে এই ভুক্তভোগীদের আর্তনাদ কেউ শুনতে চায়না মানে শুনছেন না। এবিষয় লাঠিয়াল ডাঙ্গা গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিম উদ্দিন অভিযোগ করে বলেন দেশের সবকটি জেলা উপজেলার রাস্তা ঘাটের উন্নয়ন হলেও আমাদের এই এলাকাটি বরাবরই উন্নয়নে এগিয়ে আসেননি কেউ ।
 বৃষ্টি হলেই ঘর থেকে বাহিরে যাওয়ার কোন সুযোগ নেই। রাস্তায় পা দিলেই পা পিছলে কাপড় নষ্ট হয়ে যায় ফলে রাস্তার অভাবে  অনেক কষ্টে জীবনযাপন করতে হচ্ছে আমাদের। সরকারের কাছে দাবী জানাচ্ছি জুররি ভিত্তিতে এঅঞ্চলের উন্নয়ন করবেন । পাশাপাশি গ্রামের আব্দুস ছাত্তার দেওয়ানি রাস্তার বিষয় কথা হলে তিনি বলেন কি বলবো দুঃখের কথা এখন আমার বয়স ১১৭ বছর আর কয়দিন পর হয়তো থাকবো না। এই এলাকাটি বরাবরই অবহিত উন্নয়ন কি জিনিস দেখার ভাগ্য হইলো না দেশ স্বাধীন হয়েছে কিন্তু আমরা এই অঞ্চলের মানুষ আজও স্বাধীনতা পাইলাম না।
তারপরও সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করছি এই বিছিন্ন অঞ্চলটিকে একটু চলাফেরার সুযোগ করে দিবেন। আলগারচর গ্রামের আলহাজ্ব হাসেন আলী বলেন কি বক্তব্য দিবো বলার ভাষা নেই আমাদের এই এলাকাটি কেন উন্নয়ন হচ্ছেনা সমস্যা কোথায় জানিনা সরকারের কোন লোকই আমাদের রাস্তা ঘাটের দুঃখ দূর্দশার বিষয় গুলি কেউই মাথায় নিচ্ছেন না আমি সরকারের কাছে দাবী জানাচ্ছি সারাজীবন আওয়ামী লীগের নৌকায় বইঠা বাইলাম কি পাইলাম আমার কিছুই চাইনা রাস্তার উন্নয়ন করবেন এটাই দাবী।
এবিষয়ে রৌমারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ইমান আলী ইমন তার কাছে বিছিন্ন এলাকার মানুষ গুলো রাস্তার অভাবে চরম দূর্ভোগ পোহাচ্ছে এবিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন সরকারের উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের কাছে আবেদন করেছি বরাদ্দ পেলেই ওই এলাকায় কাছ করা হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.