গুজব প্রতিরোধ ও উন্নয়ন সংবাদ প্রচারে গণমাধ্যমের ভূমিকা শীর্ষক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

0 148

নিজস্ব প্রতিবেদক: গুজব প্রতিরোধ ও উন্নয়ন সংবাদ প্রচারে গণমাধ্যমের ভূমিকা শীর্ষক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আঞ্চলিক তথ্য অফিস (পিআইডি) রাজশাহী’র উদ্যোগে আজ বেলা এগার টায় মহানগরীর ফ্রেন্ডস পিক মিলনায়তনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। তথ্য অধিদফতর ঢাকার প্রধান তথ্য অফিসার সুরথ কুমার সরকার প্রধান অতিথি হিসেবে সভায় বক্তৃতা করেন।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

 

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মো. কামরুজ্জামানের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় উপপ্রধান তথ্য অফিসার মোঃ তৌহিদুজ্জামান, বাংলাদেশ বেতার রাজশাহীর আঞ্চলিক পরিচালক, বিভাগীয় জেলা তথ্য অফিসের পরিচালক, সিনিয়র তথ্য অফিসার ফারুক মো. আব্দুল মুনিম ও মুহা. শামসুজ্জামানসহ জাতীয় ও স্থানীয় প্রিন্ট এবং ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকগণ অংশগ্রহণ করেন।

 

মতবিনিময় সভায় প্রধান তথ্য অফিসার পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপনার মাধ্যমে গুজব প্রতিরোধ ও উন্নয়ন সংবাদ প্রচারে গণমাধ্যমের ভূমিকার ওপর গুরুত্বারোপ করে বিশদ আলোচনা করেন। তিনি বলেন, সংবাদপত্র রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ। রাষ্ট্রের সার্বিক উন্নয়নে গণমাধ্যমের ভূমিকা অপরিসীম। বর্তমান সময়ে গুজব প্রতিরোধ ও সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড জনগণকে অবহিতকরণে গণমাধ্যম ব্যাপক ভূমিকা পালন করছে।

 

পিআইডি’র কর্মকান্ড সম্পর্কে সাংবাদিকদের অবহিত করে প্রধান তথ্য অফিসার বলেন, আমাদের কাজ সাংবাদিকগণের তথ্যের প্রাপ্যতার সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়া, যাতে সাংবাদিকগণ সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন সংবাদ জনগণকে সহজে জানাতে পারে। তিনি বলেন, বর্তমানে জনগণ জানতে চায়। তাছাড়া উন্নয়ন কর্মকান্ড প্রচার করে জনগণের মধ্যে উৎসাহ সৃষ্টি করতে হবে। যেন আগে থেকেই সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড সম্পর্কে জনগণকে অবহিত করা যায় তাহলে নেতিবাচক সংবাদ সৃষ্টি হবে না। গুজব প্রতিরোধ করা যাবে।

 

এ সময় তিনি সরকারের উন্নয়ন ও সাফল্যের চিত্র তুলে ধরেন। তিনি বলেন, সরকারের নীতি প্রণয়ন ও নেতৃত্বের কারণে বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়েছে। বাজেটের আকার বেড়েছে, গত দুই বছর জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৮ শতাংশের বেশি ছিল, এখন মাথা পিছু আয় ২,০৬৫ মার্কিন ডলার, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৪৩ বিলিয়ন ডলার, অতি দারিদ্র্যের হার ১০ শতাংশের নিচে।

 

তিনি বলেন, এখন দেশে বিদ্যুৎ বিভ্রাট নেই বললেই চলে। ৯৯ শতাংশ লোক বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসেছে। ডিজিটাল বাংলাদেশের কল্যাণে সহজে মানুষ কাঙ্খিত সেবা পাচ্ছে। বর্তমানে দেশে ১১ কোটির বেশি মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করছে। এর ফলে অনেক কর্মসংস্থান হয়েছে।

 

তিনি বলেন, কমিউনিটি ক্লিনিক থেকে প্রান্তিক এলাকার মানুষ সহজে স্বাস্থ্যসেবা নিতে পারছে। সরকারের সক্ষমতা বৃদ্ধির ফলে করোনা মোকাবিলায় যথাসময়ে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা সম্ভব হয়েছে।

 

এ সময় তিনি পদ্মাসেতুসহ বিভিন্ন মেগা প্রকল্পের সুফল সম্পর্কে আলোচনা করেন। তিনি বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে উন্নয়ন কর্মকান্ডগুলো জনগণের কাছে আরো বেশি পৌঁছে দেয়ার আহবান জানান।

সভায় প্রধান তথ্য অফিসার সাংবাদিকগণের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন। প্রধান অতিথির সাথে উন্মুক্ত আলোচনার সুযোগ পেয়ে সাংবাদিকগণ সন্তোষ প্রকাশ করেন।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.

x