জমি ও রাস্তা দখলের অভিযোগ বগুড়ার শেরপুরের সাবেক সাংসদ জিএম সিরাজের বিরুদ্ধে

0 1,371

স্টাফ রিপোর্টার: বগুড়ার সুনামধন্য ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান এস আর গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান এস আর কেমিক্যাল ইন্ডাষ্ট্রিজের নামে শেরপুরের রাজাপুর এলাকায় ইউনিয়ন পরিষদের রাস্তা দখল, বিধবার জমি দখল ও বাড়ীঘর ভাংচুর, পারিবারিক কবরস্থান দখলের অভিযোগ উঠেছে ওই গ্রুপের চেয়ারম্যান বগুড়ার শেরপুর-ধুনট আসনের সাবেক সাংসদ জিএম সিরাজের বিরুদ্ধে। অবৈধভাবে দখল ঠেকাতে সম্প্রতি দখলবাজ ও ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে ভুক্তভোগী এলাকাবাসী।
জানা যায়, বগুড়ার শেরপুরের সুনামধন্য ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান এস আর গ্রুপ তার সহযোগী প্রতিষ্ঠান এস আর কেমিক্যাল ইন্ডাষ্ট্রিজ তৈরীর করার লক্ষ্যে উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের রাজাপুর গ্রামের রাজাপুর মৌজার জেএলনং ১৫৬ স্থানে ভূমি ক্রয় শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় গত ২৯ মার্চ ওই কোম্পানীর নামে মালিকানা কর্তৃপক্ষ স্থানীয় টাউট শ্রেণী লোক ও ভাড়াটে সন্ত্রাসী বাহিনী লেলিয়ে দিয়ে রাজাপুর গ্রামের স্বামী পরিত্যক্তা মৃত আবু সাঈদের স্ত্রী বিধবা নাজমা বেগমের ৯৫/৮৭, সাবেক দাগ নং ১০০/৩৩২ ও হালে ৩৩৩ দাগের ১৭ শতাংশ জমি বেদখল করার পায়তারার জন্য বাড়ীঘর ও মুরগীর ফার্ম ভাংচুর, ৭৭নং খতিয়ানের দাগনং ১০২/৩৩৭ এ আবু বকর শেখ, আছিয়া বেগম, সুফিয়া ও মনোয়ারা বেগমসহ কয়েকজনের পারিবারিক কবরস্থান দখল ও বাঁশঝাড় কেটে, বেকু মেশিন লাগিয়ে আবাদী জমি ক্ষতিসাধন করে। শুধু তাই নয় এস আর কেমিক্যাল ইন্ড্রাস্টিজ কোম্পানীর চেয়ারম্যান সাবেক সাংসদ জিএম সিরাজ এলাকার গরীব ও অসহায় ব্যক্তিদের জায়গা বাড়িঘর দখল নয়, রক্ষা পাচ্ছেনা স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের অন্তর্ভূক্ত মহাসড়ক থেকে রাজাপুর গ্রামের কৃষক তথা জনগনের চলাচলের জন্য ১নং খতিয়ানের ২৮৪ নং দাগভুক্ত প্রায় পৌনে ১ কি:মি: রাস্তা দখলের অভিযোগও উঠেছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।
তবে ওই কোম্পানীর জায়গা প্রসারে এলাকার কতিপয় টাউট শ্রেনী লোকজন, ভাড়াটে সন্ত্রাসী বাহিনী ব্যবহার করে কোম্পানীর আওতাভুক্ত জমির মালিকদের কাছ থেকে কমমূল্যে জমি কিনতে ভয়ভীতি, জমি দিতে রাজী না হলে বেদখল ও ভাংচুরযজ্ঞও চালোনা হচ্ছে একাধিক অভিযোগ রয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় গত ২৯ মার্চ দুপুরে সাবেক সাংসদ জিএম সিরাজের শেরপুর শহরের অর্ধশত ভাড়াটে বাহিনী দিয়ে তার নতুন কোম্পানীর প্লটের সীমানা প্রাচীর এলাকায় বিধবার বাড়ীঘর, মুরগীর ফার্ম ভাংচুর ও পারিবারিক কবরস্থান দখল ও বাঁশঝাড় কেটে দখলের চেষ্টা করে। এঘটনায় ভুক্তভোগী ও বিক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী ওই এলাকায় মানববন্ধন, প্রতিবাদ বিক্ষোভ করাকালে খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বিচারের আশ্বাস দিলে উত্তপ্ত পরিস্থিতি শান্ত করেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।
এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী বিধবা নাজমা বেগম বলেন স্বামী মারা যাওয়ার পর থেকে আমি ১৭ শতক জমির উপরে বাড়ী ও মুরগীর ফার্ম করে জীবনযাপন করে আসছিলাম। কিন্তু ওই কোম্পানীর লোকজন আমার কাছে কম টাকায় জায়গা চাইলে, আমি দিনে রাজী না হওয়ায় প্রায় অর্ধশত ভাড়াটে সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে বাড়ীঘর ও মুরগীর ফার্ম ভাংচুর করে জায়গা বেদখল দেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে। নাজমার কথার সাথে তাল মিলিয়ে একই এলাকার ভুক্তভোগী আবু বকর শেখ, আব্দুর রাজ্জাক, আছিয়া বেগমসহ একাধিকরা কোম্পানীর মালিক সাবেক সাংসদ জিএম সিরাজের পাঠানো ভাড়াটে বাহিনী দিয়ে জায়গা দখল ও ভাংচুরের অভিযোগ রয়েছে মর্মে অকপটে স্বীকার করেন।
এ ব্যাপারে উপজেলার রাজাপুর এলাকায় এস আর কোম্পানী ইন্ডাস্ট্রিজের জায়গাতে উভয়ের পক্ষের মধ্যে উত্তেজনার ঘটনা স্বীকার করে শেরপুর থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক আব্দুল গফুর বলেন, থানার ডিওটি অফিসারের নির্দেশনা মোতাবেক ঘটনাস্থলে গিয়ে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি শান্ত করি এবং ওসি সাহেবের কাছে তাদের আসতে বলি, এটাই ছিল আর ডিউটি, এর বাহিরে আর কিছু আমি জানিনা।
এ ব্যাপারে ৭ এপ্রিল শনিবার বেলা ৩টার দিকে এস আর গ্রুপের চেয়ারম্যান বগুড়ার শেরপুর-ধুনটের সাবেক সাংসদ জিএম সিরাজের ০১৭২৬ ৩৬১৯৭৯ ও ০১৭১১ ৫২০৮৫৩ মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তবে তার ভাই গোলাম মাহবুব প্যারিসের সাথে মোবাইল ফোনে কথা বললে, তিনি জমি দখলের বিষয়টি মিথ্যা ও ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছেন।
তবে এ ঘটনায় ভুক্তভোগীদের মৌখিক অভিযোগ প্রাপ্তির সত্যতা স্বীকার করে শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ রফিকুল ইসলাম বলেন, ওই এলাকায় একটি বিশৃঙ্খলার ঘটছে মর্মে পুলিশ পাঠাই এবং কাগজপত্র নিয়ে উভয় পক্ষকে থানায় আসতে বললেও কোম্পানী পক্ষ আসলেও অন্যরা আসেনি, তাই ব্যবস্থা নিতে পারিনি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.