জলদস্যুদের জিম্মায় আটক নাবিক নাটোরের জয় মাহমুদের পরিবারে চলছে আতংক ॥ ফিরিয়ে আনার দাবী সরকারের প্রতি

0 ৭৯

নাটোর প্রতিনিধি: ভারত মহাসাগরে বাংলাদেশী পণ্যবাহী একটি জাহাজ সহ ২৩ নাবিক ও ক্রুকে জিম্মি করে রেখেছে সোমালিয়ান জলদস্যুরা। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে ভারত মহাসাগর থেকে জাহাজটিসহ ২৩ বাংলাদেশি নাবিক ও ক্রুকে জিম্মি করে তারা। জিম্মিদের মধ্যে নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার জয় মাহমুদের নামে এক নাবিক রয়েছেন। ছেলে জলদস্যুদের কাছে জিম্মি কথাটা জানার পর থেকেই দুশ্চিন্তাগ্রস্ত ও আতংকিত হয়ে পড়েছে তার পরিবার ও আত্মীয়-স্বজনরা। এ ঘটনা জানার পর থেকেই গ্রামজুরে চলছে নানা জল্পনা কল্পনা। জলদস্যুদের হাতে জিম্মি জয় মাহমুদ নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার সালাইনগর গ্রামের জিয়াউর রহমান ও আরিফা বেগম দম্পতির ছেলে। জয় ওই জাহাজের অর্ডিনারি সি-ম্যান (সাধারণ নাবিক) হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। জলদস্যুদের হাতে জিম্মি হওয়ার পর জয় মাহমুদ তার মা ও তার চাচাতো ভাইয়ের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথাও বলেছেন।
জয়ের মা আরিফা বেগম ও বাবা জিয়াউর রহমান বলেন, তাদের এক ছেলে ও এক মেয়ের মধ্যে জয় বড় ছেলে। ছেলে দুই বছর আগে জাহাজে চাকুরী পায়। চাকুরী পাওয়ার পর সে চলে যায় জাহাজে। এরপর গত ৪ মাস আগে ছুটিতে এসেছিল। এখন শুনছেন তার ছেলে সহ অনেকে জলদস্যুদের কাছে ধরা পড়েছে।তারা সরকারের কাছে দাবী জানান তাদের ছেলে সহ জিম্মি সকলকে ফিরিয়ে আনার জন্য ।
জয় মাহমুদের ছোট বোন জেরিনা খাতুন বলেন, তারা আদরের বড় ভাই যেন তাড়াতাড়ি বাড়ীতে ফিরে আসে। সেই অপেক্ষায় দিন গুনতে শুরু করেছে সবাই।
কান্না জড়িত কণ্ঠে জয়ের বৃদ্ধা দাদী রওশন আরা বিলাপ করতে করতে বলেন, তার নাতীকে ফিরিয়ে আনার জন্য সরকার যেন ব্যাবস্থা নেন।
জয় মাহমুদের চাচাতো ভাই মারুফ হোসেন বলেন, দুপুর দেড়টার দিকে ভাই তাকে ফোন দিয়ে জানায় যে, ‘তাদের জাহাজে জলদস্যুরা আক্রামণ করেছে। তার সঙ্গে আর কথা নাও হতে পারে’। বাড়ীতে কাউকে কিছু বলতে নিষেধ করে সে। এখন মোবাইল ফোন কেড়ে নিতে পারে বলেই ফোন কেটে দেয়। পরবর্তীতে মেসেজ করলে সন্ধ্যা ৬ টা ৪০ মিনিটে জয় মেসেজ দিয়ে জানায় দস্যুরা সবার ফোন কেড়ে নিয়েছে আর কথা হবে না।
জয়ের চাচী নাজমা বেগম বলেন, তার ভাতিজা দুপুরে ফোন করে জানায় তাদের জাহাজে জলদস্যুরা আক্রমন করেছে। আর হয়তো কোন কথা হবেনা। এই বলেই ফোন কেটে দেয়। তিনিও তার ভাতিজা সহ সকলকে ফিরিয়ে আনার দাবী জানান সরকারের কাছে।
মামুনুর রশীদ ও নাসিম মাহমুদ সহ এলাকাবাসী বলেন,জয় এএসসি পাশ করে জাহাজে চাকুরী পেয়েছে। দরিদ্র পরিবারের সন্তান জয়। কঠোর পরিশ্রম করে আজ সে এই অবস্থায় পৌঁছেছে। জয় পরিবারে একমাত্র উপার্জনকারী ব্যক্তি। সে জাহাজে চাকুরী করে তার সংসার চালায়। সে ছাড়া এই পরিবারটি একেবারে ধ্বংস হয়ে যাবে। তাই তারা সরকারের কাছে জোড় দাবী জানান জয় সহ সকলকে ফিরিয়ে আনার।
জয়ের বন্ধু রাজিব আলী বলেন, তারা বাল্যকালে বন্ধু। তার এই বিপদের কথা শুনে সবাই নির্বাক। দ্রুত তাকে ফিরিয়ে আনার দাবী জানান তিনি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.