জামার বিড়ম্বনায় পিয়ার ঈদ

1,154

আলমগীর,বিনোদন :
এই সময়ের আলোচিত আন্তর্জাতিক মডেল ও অভিনেত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস পিয়া । প্রতি বছরই খুলনায় বাবার বাড়িতে ঈদ করেন। কিন্তু বিয়ের কারণে তিন বছর ধরে আর খুলনায় ঈদ করতে পারছেন না। এবার ঠিকই আবার ঈদের আগেই চলে গিয়েছেন খুলনায়। সেখানেই ঈদ। কেমন কাটলো পিয়ার ঈদ। জানা যায় ঈদ ভাল কাটলেও মেজাজ একটু খারাপ ছিল তার। কারণ আর কিছুই না দর্জি তার ঈদের জামা উল্টাপাল্টাভাবে বানিয়ে ফেলেছে। ফলে মেজাজ খুব খারাপ। তার ওপর আবার আরেকটা ঈদের নতুন জামা ছিল সেটাতেও সমস্যা। তাই শেষে শার্ট প্যান্ট পরেই ঈদ পার করলেন পিয়া।

জামা নিয়ে একটা স্ট্যাটাসও দিয়ে ফেলেন ফেসবুকে। সেখানে দেখা যাচ্ছে মাথা ঠান্ডা করতে রাস্তার মাঝে দাঁড়িয়ে তিনি একটা কোমল পানীয় পান করছেন। আর ক্যাপশনে লেখা ‘আজকের ঈদের সকালবেলা । আমার দর্জি সালোয়ার কামিজ এর ১২ টা বাজানোর পর মাথা ঠান্ডা করার প্রচেষ্টা মাত্র। পেছনে কিন্তু আমার স্কুল। খুলনার কেউ কি আমার স্কুলের নাম বলতে পারবেন।’

এমন একটি ক্যাপশনের সঙ্গে ছবি দেখে যোগাযোগ করা হয় পিয়ার সঙ্গে। পিয়া বলেন, নরমালি আমি সব সময় খুলনায় ঈদ করি। কিন্তু বিয়ের পর তিন বছর ঢাকাতেই ঈদ করছি। তাই এবার খুলানাতেই চলে এলাম। এখানে দির্জ আমার জামার ১২ টা বাজিয়ে দিয়েছে। তাই রাগ করে শার্ট প্যান্ট পরেই ঘুরতে বের হয়ে গেছি। এখনও কাজিনদের সঙ্গে বাইরেই ঘুরছি। তবে পরে আবার শাড়ি পরে বের হয়েছি।’

সারাদিন কি করলেন, জানতে চাইলে পিয়া বলেন, ‘রুপসা ব্রিজ গেলাম। ব্রিজের পরে একটি মেলা হচ্ছে সেখানেও ঘুরলাম কাজিনদের সঙ্গে। ঢাকায় থাকলে তো সারাদিন ঘুমিয়েই কাটাতাম। এখানে কাজিনদের সঙ্গে একটা অন্যরকম ঈদ পার করলাম। এখন একজায়গায় এসেছি রাতের খাবার খেতে।’

প্রসঙ্গত, পিয়া যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে গত ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিতব্য নিউ ইয়র্ক ফ্যাশন উইকের এবারের আসরে র‌্যাম্পে উপস্থিত ছিলেন। প্রসাধনী সামগ্রী ট্রেসমে’র শুভেচ্ছাদূত হিসেবে সেখানে অংশগ্রহণ করেছেন পিয়া। ২০০৭ সালে মিস বাংলাদেশ খেতাব বিজয়ী হন। পরবর্তীতে তিনি চোরাবালি, স্টোরি অব সামারা, গ্যাংস্টার রির্টানস চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় ভোগ ম্যাগাজিনের ২০১৬ সালে ভারতীয় সংস্করণের অক্টোবর সংখ্যায় কাভার গার্ল হয়েছিলেন বাংলাদেশি এই মডেল ও অভিনেত্রী। তিনিই প্রথম কোনো বাংলাদেশি হিসেবে আন্তর্জাতিক মানের এই ফ্যাশন ম্যাগাজিনের মডেল হয়েছিলেন।

x