টাঙ্গাইলে বন্যায় ৭৬৯ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি

0 865

tangail_মু.জোবায়েদ মল্লিক বুলবুল, টাঙ্গাইল : টাঙ্গাইলে চলতি বছরের বন্যায় ১২টি উপজেলার মধ্যে ১০ উপজেলার ৮৪টি ইউনিয়ন ও ৬টি পৌরসভা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সরকারি হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এর মধ্যে ৩২টি ইউনিয়ন মারাতœক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৭৬৯ কোটি টাকা।
জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, বন্যায় এক হাজার ১৩ দশমিক ৮০ বর্গ কিলোমিটার এলাকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এরমধ্যে শহরাঞ্চলের ৩ দশমিক ৮০, গ্রামাঞ্চলের ৬২৮ দশমিক ৬৯ এবং চরাঞ্চলের ৩৮১ দশমিক ৩১।
ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এক লাখ ৩৭ হাজার ৫৪৯টি খানা। ক্ষতিগ্রস্ত নারী ২ লাখ ৬৫ হাজার ৯৫৯, পুরুষ ২ লাখ ৮৪ হাজার ২৭২ এবং শিশু ৬১ হাজার ৩০২ জন। মোট ক্ষতিগ্রস্ত জনসংখ্যা ৫ লাখ ৯৩ হাজার ৪৩৩ জন।
১৮টি সম্পূর্ণ পাকা বাড়ি, এক হাজার ৮৭টি আংশিক, আধা পাকা বাড়ি ১ হাজার ৩২টি সম্পূর্ণ, ৫ হাজার ৯৫৬টি আংশিক, আধাপাকা ঘর ১ হাজার ৪টি সম্পূর্ণ, ৪ হাজার ১৪৩টি আংশিক, কাঁচা বাড়ি ৭ হাজার ৫৩৪টি সম্পূর্ণ, ৫ লাখ ৩৮ হাজার ৯০৫টি আংশিক, কাঁচা ঘর ১১ হাজার ১৪৮টি সম্পূর্ণ ও ৫১ হাজার ৫৩১টি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
প্রাণিসম্পদ বিভাগের তথ্যমতে মৃত ও ভেসে যাওয়া গবাদি পশুর মধ্যে রয়েছে, ভেড়া ৫৩৫টি, ছাগল ১ হাজার ৯৭টি, গরু ৪০৩টি, মহিষ ৫টি। হাঁস ৭৩ হাজার ৮৯৪ ও মুরগি ৫৬ হাজার ১৭৪টি।
ফসলি জমি ক্ষতিগ্র হয়েছে ১২৭ কোটি টাকার। শস্যক্ষেত সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ১৪ হাজার ২০৩ হেক্টর, আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ১৫ হাজার ৯৭৩ হেক্টর, রোপা আমন ধানের বীজতলা ১ হাজার ২৬৮ হেক্টর সম্পূর্ণ ও ৩৩৮ হেক্টর আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
মৎস্য ও চিংড়ি খামার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৫৪ দশমিক ১১ হেক্টর। বিদ্যুৎ লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৫ কিলোমিটার সম্পূর্ণ ও ১২ কিলোমিটার আংশিক। ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের মধ্যে মসজিদ ১৩০টি সম্পূর্ণ, ৩১৮টি আংশিক ও মন্দির ৯৭টি আংশিক।
সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পাকা ৯ কিলোমিটার সম্পূর্ণ, ১৭৫ কিলোমিটার আংশিক, ইট খোয়া দ্বারা নির্মিত ১৪ দশমিক ৯ কিলোমিটার সম্পূর্ণ, ৫২ দশমিক ২০ কিলোমিটার আংশিক, কাঁচা সড়ক ৬১৪ দশমিক ১৫ কিলোমিটার সম্পূর্ণ ও ১ হাজার ৫২ কিলোমিটার  আংশিক। মোট ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক ৬৩৮ কিলোমিটার সম্পূর্ণ ও এক হাজার ৪ কিলোমিটার আংশিক।
২টি ব্রিজ সম্পূর্ণ, ১৫১টি আংশিক, ৩২টি কালভার্ট সম্পূর্ণ ও ১০৩টি আংশিক ক্ষতি হয়েছে। নদী ৮ কিলোমিটার সম্পূর্ণ, ১৬ দশমিক ৫ কিলোমিটার আংশিক ক্ষতি হয়েছে।
বনাঞ্চল ৩ হেক্টর আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বনায়ন সম্পূর্ণ ২ ও আংশিক ৪ হেক্টর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। নার্সারি ৮ দশমিক ৭৫ হেক্টর সম্পূর্ণ ও ২ দশমিক ৭৫ হেক্টর আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয় ১৩টি সম্পূর্ণ, ৩০৩টি আংশিক, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ১টি সম্পূর্ণ, ৮৭টি আংশিক, কলেজ ৯টি আংশিক, মাদ্রাসা ৪৪টি আংশিক ও কমিউনিটি স্কুল ৫টি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত অন্যান্য শিল্প প্রতিষ্ঠানের মধ্যে অকৃষি ভিত্তিক ১১টি সম্পূর্ণ ও ১২টি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
২টি গভীর নলকূপ সম্পূর্ণ, ৮টি আংশিক, ২৪৬টি অগভীর নলকূপ সম্পূর্ণ, ১০ হাজার ৬০টি আংশিক, হস্তচালিত সম্পূর্ণ ৪টি ও ২ হাজার ২০৭টি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা ৭ হাজার ৮৪৪টি সম্পূর্ণ ও ২২ হাজার ৬৬৯টি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
বন্যায় ২৮৯টি পুকুর সম্পূর্ণ ও ৪৬৫টি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। জলাশয় ২০টি সম্পূর্ণ ও ৭৮টি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত  হয়েছে। ৪টি হাসপাতাল আংশিক, ২টি ক্লিনিক আংশিক ও ১টি কমিউনিটি ক্লিনিক সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ২টি নৌকা সম্পূর্ণ, ১৮টি আংশিক, ২টি জাল সম্পূর্ণ ও ৬৪টি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

Leave A Reply

Your email address will not be published.

x