ডোনাল্ড ট্রাম্পকে যেভাবে আদালতে নেওয়া হতে পারে

0 ২১৮
ডোনাল্ড ট্রাম্প। ছবি : এএফপি

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে পর্ন তারকা স্টর্মি ড্যানিয়েলসকে ঘুষ দেওয়ার মামলায় আগামী মঙ্গলবার (৪ মার্চ) স্থানীয় সময় দুপুরে শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে। এদিন ট্রাম্পের আদালতে হাজির হওয়া নিয়ে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হচ্ছে।

শনিবার (১ এপ্রিল) বিবিসির প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়। বিবিসি জানায়, ট্রাম্প ফ্লোরিডা থেকে তার ব্যক্তিগত বিমানে করে নিউইয়র্কের আদালতে যাবেন। এ সময় তার নিরাপত্তার দায়িত্বে ফেডারেল এজেন্টরা থাকবে।

সাবেক এই মার্কিন প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে অভিযোগ, স্টর্মি ড্যানিয়েলসের সঙ্গে নিজের সম্পর্ক গোপন রাখতে এক লাখ ৩০ হাজার ডলার প্রদান করেছেন তিনি। যদিও এমন অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ট্রাম্প। তবে, গত বৃহস্পতিবার (৩০ মার্চ) নিউইয়র্কের ম্যানহানটনের গ্র্যান্ড জুরি ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে। তিনিই প্রথম সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট, যার বিরুদ্ধে ফৌজদারি অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। ট্রাম্পের বিরুদ্ধে আনা সবগুলো অভিযোগ এখনও স্পষ্টভাবে জানা যায়নি।

ট্রাম্পের আদালতে যাওয়ার প্রক্রিয়ার সঙ্গে সিক্রেট সার্ভিসের শতাধিক সদস্য জড়িত থাকবেন বলে জানিয়েছেন মার্কিন কর্মকর্তারা। এক কর্মকর্তা বলেন, ট্রাম্পকে হাতকড়া পরানো হবে না। কারণ সাধারণত যাদেরকে ঝুঁকিপূর্ণ মনে করা হয়, তাদেরকে হাতকড়া পরানো হয়।

ট্রাম্পের আইনজীবী জো ট্যাকোপিনা এবিসি টেলিভিশনকে বলেন, ‘ট্রাম্প মঙ্গলবার আদালতে যেতে পারেন। তবে সেটি নিশ্চিত নয়। সাবেক প্রেসিডেন্টকে হাতকড়া পরানো হবে না।’

আদালতে ট্রাম্পের আত্মসমর্পণকে ঘিরে নিরাপত্তা ব্যবস্থার দায়িত্বে রয়েছেন এফবিআই, এনআইপিডি, সিক্রেট সার্ভিস ও নিউইয়র্ক সিটি কোর্ট কর্মকর্তারা।

সূত্রের বরাত দিয়ে সিবিসি টেলিভিশন জানায়, নিরাপত্তার সঙ্গে জড়িত এসব সংস্থা ডোনাল্ড ট্রাম্প, বিচারক ও আইনজীবীসহ সংশ্লিষ্টদের ওপর হামলাসহ সম্ভাব্য বিভিন্ন বিষয় বিশ্লেষণ করে দেখছে। ইতোমধ্যে ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি অফিস অনেকগুলো হুমকি পেয়েছে।

স্থানীয় সময় শুক্রবার আদালত এলাকায় স্বাভাবিক পরিস্থিতি থাকলেও ট্রাম্পের আত্মসমর্পণের বিষয়টি মাথায় রেখে ব্যারিকেড দিতে দেখা গেছে। এছাড়া পুলিশ কর্মকর্তারা টহল দিচ্ছিলেন। সাবেক প্রেসিডেন্ট আদালতে আসার সময় পুরো এলাকা লকডাউন করে দেওয়া হতে পারে বলে ধারণা করছেন অনেকে।

শুক্রবার ট্রাম্পকে আত্মসমর্পণ করতে বলেছিল ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি অফিস। কিন্তু নিরাপত্তার কথা বলে তা প্রত্যাখ্যান করেছেন তিনি।

এদিকে, ট্রাম্প বিচারকদের তীব্র সমালোচনা করেছেন। এছাড়া ম্যানহাটন ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নির বিরুদ্ধে আগামী নির্বাচনকে প্রভাবিত করতে বিচারব্যবস্থাকে ব্যবহারের অভিযোগ করেছেন রিপাবলিকান স্পিকার কেভিন ম্যাকার্থি।

তবে ম্যানহাটন ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি আলভিন ব্রাগ বলেন, ‘সাবেক প্রেসিডেন্ট বা কংগ্রেস কেউই বিচার প্রক্রিয়ায় হস্তক্ষেপ করতে পারে না। অভিযোগগুলো এনে নিউইয়র্কের নাগরিকরা তাদের দায়িত্ব পালন করেছেন।’

যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে প্রতিবাদ বিক্ষোভ হতে পারে বলে ধারণা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর। দেশটির রাজধানী ওয়াশিংটনে নিরাপত্তা বাড়ানোর পরিকল্পনা করছে ইউএস ক্যাপিটল পুলিশ।

এদিকে, সাংবাদিকরা জানতে চাইলেও এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তবে অভিযোগগুলো নিয়ে ট্রাম্প মোটেও উদ্বিগ্ন নন বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবী জো ট্যাকোপিনা।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, সাবেক পর্ন তারকা স্টর্মি ড্যানিয়েলসের সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়টি ধামাচাপা দিতে তাকে অর্থ দিতে তৎকালীন আইনজীবী মাইকেল কোহেনকে নির্দেশ দিয়েছিলেন ট্রাম্প। স্টর্মি ড্যানিয়েলসের দাবি, ২০০৬ সালে লেক তাহো হোটেলে তার সঙ্গে যৌন মিলন করেছিলেন ট্রাম্প।

এদিকে, ট্রাম্পের নির্দেশনায় এক লাখ ৩০ হাজার ডলার দিয়ে বিষয়টি দফারফা করেছেন বলে আদালতকে জানিয়েছেন তৎকালীন আইনজীবী কোহেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.