তদন্ত প্রতিবেদন জমা হলেও তা দিতে গড়িমসি কর্তৃপক্ষের!

0 ১০৯
নিয়ামতপুর (নওগাঁ) প্রতিনিধিঃ নওগাঁর নিয়ামতপুরে চিকিৎসকের অবহেলায় ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিশুশিক্ষার্থী তাসকেয়া তৃষার মৃত্যুর ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্ট নিয়ে ধুম্রজাল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। তদন্ত রিপোর্ট হাতে পেয়েও তা প্রকাশে গড়িমসি শুরু হয়েছে কর্তৃপক্ষের। সংবাদকর্মীরা প্রতিবেদনের রিপোর্ট জানতে চাইলেও মূখ খুলছেননা তারা। তথ্য অধিকার আইনে আবেদনের মাধ্যমে তদন্ত রিপোর্ট সংগ্রহ করতে বলা হচ্ছে তাদের। এ নিয়ে সবার মাঝেই তদন্ত রিপোর্ট নিয়ে একটা উৎকন্ঠা বিরাজ করছে।
২১ আগষ্ট সাপের কামড়ে তৃষার মৃত্যুর ঘটনায় চিকিৎসক ডাঃ লিংকনের বিরুদ্ধে অবহেলার অভিযোগ আনেন তৃষার পরিবার। তৃষার মৃত্যু নিয়ে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ পায়। মৃত্যুর পরদিন এলাকাবাসী ও তৃষার স্কুলের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকরা মানববন্ধন করেন ডাক্তার লিংকনের বিচার চেয়ে।
এমন পরিস্থিতিতে চিকিৎসকের অবহেলা খতিয়ে দেখতে জেলা সিভিল সার্জন অফিস ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে পৃথক দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয় এবং তিন কার্য দিবসের মধ্যে ওই তদন্ত কমিটিকে তাদের তদন্ত রিপোর্ট জমা দিতে বলা হয়। এছাড়াও গত ২৫ আগস্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দায়িত্বরত অবস্থায় ডাক্তার লিংকনের চিকিৎসায় অবহেলা রয়েছে কি-না তা খতিয়ে দেখে যায় সিভিল সার্জনের একটি টিম।
এদিকে, ২৬ আগস্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গঠিত তদন্ত কমিটি মৃত তৃষার পরিবারের সাথে বসেন এবং কথা বলেন। অবশেষে পৃথক দুটি তদন্ত কমিটির তদন্ত রিপোর্ট জেলা সিভিল সার্জনের অফিসে জমা হলেও তদন্ত প্রতিবেদনে কি লিখা হয়েছে তা নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছেন তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। অথচ তদন্ত কমিটি গঠনের পর থেকেই নিয়ামতপুরের সাধারণ মানুষ, ভুক্তভোগীর পরিবার, নিহত তৃষার সহপাঠি ও উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা তাকিয়ে রয়েছেন তদন্ত রিপোর্টের দিকে।
তাদের সকলেরই কৌত’হল কি আছে ওই তদন্ত রিপোর্টে, তৃষার মৃত্যুতে ডাক্তারের অবহেলার সঠিক চিত্র উঠে আসবে তো, নাকি এমন ঘটনার পূনরাবৃত্তির চর্চায় উদাসীন থাকবেন চিকিৎসকরা। এমন হাজারো জিঞ্জাসা তাদের মাঝে!
তদন্ত প্রতিবেদনের বিষয়টি জানতে চাইলে নিয়ামতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য প্রশাসক  স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মাহববুল আলম বলেন, তদন্ত রিপোর্ট জমা হয়েছে কিন্তু জেলা সিভিল সার্জন অফিস থেকে অনুমতি না দিলে আমাদের পক্ষে এ বিষয়ে কোন কিছু বলা সম্ভব না।
এমন ঘটনায় মুঠোফোনে জেলা সিভিল সার্জন কর্মকর্তা ডাঃ রায়হানুজ্জামান সরকারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তদন্ত প্রতিবেদন আপনাদের দেয়ার কোন সুযোগ নেই। আপনারা ঢাকা ডি,জি অফিস, মহাখালি থেকে যোগাযোগ করে তদন্ত প্রতিবেদ সংগ্রহ করতে পারবেন।
উল্লেখ্য, গত ২১ আগস্ট রাতে তাসকেয়া তৃষাকে সাপে কামড়ালে নিয়ামতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান পরিবারের সদস্যরা। অ্যান্টিভেনম রয়েছে বলে ভর্তি রাখলেও রোগীর পরিস্থিতি অবনতির দিকে যেতে থাকলে শেষে অ্যান্টিভেনম নেই বলে জানায় ওই চিকিৎসক। পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তৃষার মৃত্যু হয়।

Leave A Reply

Your email address will not be published.