তানোরে প্রতিবন্ধীর আগুনে পোড়া বাড়ি সংস্কারে বাঁধা

0 ১৬৩

এইচএম.ফারুক, তানোর প্রতিনিধি: রাজশাহীর তানোরে রাতের আধাঁরে প্রতিবন্ধী ভিক্ষুকের বাড়ি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া ওই বাড়িটি সংস্কারের সময় এক প্রতিবেশীর বিরুদ্ধে বাঁধা দিয়ে সংস্কার কাজ বন্ধ করে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনায় বুধবার সন্ধ্যায় দুই প্রতিবন্ধী ভিক্ষুকের বিধবা মা তানোর পৌর এলাকার মথুরাপুর মহল্লার মৃত মোজাহার আলীর স্ত্রী হারেজা বেওয়া বাদি হয়ে প্রতিবেশী মৃত মিরাতনের পুত্র রফিকুল ইসলাম (৪৫) কে আসামী করে তানোর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

তবে বৃহস্পতিবার বিকালে এ রিপোর্ট লিখার সময় পর্যন্ত তানোর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়নি বা কোন ব্যবস্থা নেয়নি। অভিযোগ ও মহল্লাবাসী সুত্রে জানা গেছে, গত মঙ্গলবার (১৩ ই জুন) রাত ৯ টার দিকে কে বা কারা হারেজা বেওয়ার বাড়িতে আগুন ধরিযে দেয়।

এসময় মহল্লাবাসীসহ ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। ততক্ষণে বাড়ির একাংশ পুড়ে ছায় হয়ে যায়। আগুনে পুড়ে যাওয়া ওই বাড়িটি গত ৩/৪ দিন ধরে সংস্কার কাজ শুরু করেন ওই বিধবা মহিলা ও তার ২ প্রতিবন্ধী পুত্র।

গত বুধবার প্রতিবেশী মৃত মিরাতনের পুত্র রফিকুল ইসলাম সংস্কার কাজে বাঁধা দিয়ে বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতিসহ হুমকি দিয়ে প্রতিবন্ধী শাহিনকে মারতে উদ্ধৃত হয়। এসময় মহল্লাবাসী এসে উভয় পক্ষকে শান্ত করেন। এ ঘটনায় আতংকিত হয়ে পড়েছেন ওই বিধবা ও তার দুই প্রতিবন্ধী সন্তানসহ পরিবারের সদস্যরা।

এ ঘটনায় বুধবার ২১ শে জুন সন্ধ্যায় বিধবা হারেজা বেওয়া বাদি হয়ে তানোর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। তবে, বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত তানোর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়নি।

এ ব্যাপারে বিধবা মহিলা হারেজা বেওয়া বলেন, এই বাড়িতে ৬০ বছর ধরে বসবাস করছি, আমার দুই পুত্রের দুইজনই শারিরিক প্রতিবন্ধী ভিক্ষা করে জীবিকা নির্বাহ করি। প্রতিবেশী রফিকুলের সাথে জায়গা জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে আমাদেরকে নানাভাবে নির্যাতন করছে।

আমার বাড়িতে কে আগুন দিলো বুঝতে পারিনি, কিন্তু সংস্কার কাজে বাঁধা দেয়ার মানে হলো প্রতিবেশী রফিকুলই আমাদেরকে পুড়িয়ে মারার জন্য আগুন লাগিযে দিয়েছে। আমি এর বিচার দাবি করছি।

এ নিয়ে তানোর প্রতিবন্ধী সংস্থার উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইমরান হোসাইন বলেন, তানোরে প্রতিবন্ধীর বাড়িতে আগুন দেয়ার ঘটনার যদি সুষ্ঠু বিচার না হয়। তাহলে আমরা কঠোর আন্দলন গড়ে তুলবো।

এ বিষয়ে তানোর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামরুজ্জামান মিয়া বলেন, ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে

Leave A Reply

Your email address will not be published.