ধোনির ইচ্ছাকেই সম্মান জানিয়েছেন নির্বাচকরা

0 771

খেলাধুলা ডেস্ক : ভারতের ‘ক্যাপ্টেন কুল’ মহেন্দ্র সিং ধোনি চিরকালই ‘আনপ্রেডিক্টটেবল’৷ তাঁর সিদ্ধান্ত নেওয়ার স্টাইল অন্যদের থেকে অনেকটাই আলাদা৷ কাকপক্ষী টের পাওয়ার আগেই টেস্ট ক্রিকেট থেকে নিজের অবসরের ঘোষণা করেছে৷ সম্প্রতি সীমিত ওভারের অধিনায়কত্ব ছেড়েছেন বিষ্ময়করভাবে৷ মিডিয়া তাঁকে নিয়ে খুব বেশি নাচানাচি করুক, এটা তাঁর একেবারেই ‘না পসন্দ’৷ আবার সিংহাসন আগলে পড়ে থাকার পক্ষপাতী নন তিনি৷ সম্মান থাকতে থাকতে সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার ব্যাপারে তাঁর জুড়ি মেলা ভার৷

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

তা সত্বেও বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না তাঁর৷ হঠাৎ অধিনায়কত্ব ছাড়ার পর তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে শুরু হয়ে জল্পনা৷ প্রশ্ন উঠছে, চাপের মুখেই কি নেতৃত্ব থেকে সরে গিয়েছেন ধোনি? অনেকেই মনে করছেন, নানা দিক থেকে চাপ দেওয়া হচ্ছিল মাহিকে। সেকারণেই এক দিনের এবং টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অধিনায়কত্ব ছেড়ে দিয়েছেন রাঁচির রাজপুত্র। অবশ্য মিডিয়ার এই বক্তব্যকে ভিত্তিহীন বলেই উড়িয়ে দিচ্ছেন জাতীয় নির্বাচক কমিটির চেয়ারম্যান এমএসকে প্রসাদ। তিনি পরিস্কার বলছেন, ‘যে খবরগুলো বেরিয়ে আসছে তা পুরোপুরি মিথ্যে। নেতৃত্ব ছেড়ে দেওয়ার জন্য ধোনিকে কোনওরকম চাপ দেওয়া হয়নি। সিদ্ধান্তটা একান্তই ধোনির। বর্তমানে তিন ঘরানার ক্রিকেটেই দেশকে নেতৃত্ব দেবে বিরাট কোহলি। ওর জন্য রইল শুভেচ্ছা।’

মিডিয়ার একটা মহল থেকে দাবি করা হয়, নির্বাচকরাই ধোনিকে নেতৃত্ব থেকে সরে যাওয়ার কথা বলেন। নাগপুরে ঝাড়খণ্ড–গুজরাট রঞ্জি ট্রফির সেমিফাইনাল চলার সময় ধোনির সঙ্গে নাকি দেখা করেছিলেন নির্বাচক কমিটির প্রধান এমএসকে প্রসাদ। গত সেপ্টেম্বরেই নাকি ঠিক হয়ে গিয়েছিল যে এবার ধোনিকে নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হবে। নাগপুরে ধোনিকে বলা হয় ২০১৯ বিশ্বকাপের সময় তাঁর বয়স হবে ৩৯। তখন কি তিনি দেশকে নেতৃত্ব দিতে পারবেন? তার চেয়ে এখনই অধিনায়কত্ব ছেড়ে দিন। এরপরই নাকি নেতৃত্ব থেকে সরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন মাহি। কিন্তু সংবাদমাধ্যমের যাবতীয় দাবিকে উড়িয়ে দিলেন প্রসাদ৷

Leave A Reply

Your email address will not be published.

x