নওগাঁয় মাশরুম চাষে সবজি বিক্রেতার ভাগ্যবদল

0 ৬১

নওগাঁ প্রতিনিধি: সাগর আলী একজন সবজি ব্যবসায়ী। প্রায় ১২ বছর ধরে নওগাঁ শহরের উপজেলা পরিষদের সামনের বাজারে ছোট্ট দোকান দিয়ে সবজি বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। ইউটিউবে ভিডিও দেখে মাশরুম চাষে আগ্রহী হন সবজি বিক্রেতা সাগর আলী। প্রশিক্ষণ নিয়ে স্বল্প পুঁজিতে প্রথমে ছোট পরিসরে শুরু করেন মাশরুম চাষ। এক বছর ধরে তিনি মাশরুম চাষ করছেন। প্রথমবার মাশরুম চাষে প্রায় ৭০ হাজার টাকা মুনাফা পেয়েছিলেন। সেই আগ্রহ থেকে দ্বিতীয়বার বড় পরিসরে বাণিজ্যিক আকারে চাষ শুরু করেন।

মাশরুম চাষ লাভজনক হওয়ায় আস্তে আস্তে তিনি বড় পরিসরে মাশরুমের খামার গড়ে তোলেন। এতে তিনি বেশ সাফল্য পেয়েছেন। মাশরুম বিক্রি করে সংসারেও ফিরেছে আর্থিক স্বচ্ছলতা।

সাগর আলী নওগাঁ সদর উপজেলার কীর্ত্তিপুর ইউনিয়নের বেনী-ফতেপুর এলাকার বাসিন্দা। পড়াশোনা করেছেন পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত। মহামারিতে তার সবজি ব্যবসায় কিছুটা ভাটা পড়ে। দোকানও ঠিকমতো চলতো না। সেসময় তিনি ইউটিউবে মাশরুম চাষের ওপর ভিডিও দেখে উদ্বুদ্ধ হন। এরপর মাশরুম চাষের ওপর মাগুরা জেলার সদর উপজেলার বড়খড়ি গ্রামে ডিএম সেন্টার নামে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে চারদিনের প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। প্রশিক্ষণ শেষে সেখান থেকে অল্প কিছু বীজ নিয়ে আসেন।

সেই বীজ ১৬শ টাকা খরচ করে প্রথমে ৩০টি মাশরুম বীজ প্যাকেট (স্পন প্যাকেট) তৈরি করেন। পরে সেখান থেকে ৭ হাজার টাকার মাশরুম বিক্রি হয়। তারপর পাহাড়পুর বাজারে একটি ঘর তৈরি করে সেখানে ৬ মাস মাশরুম চাষ করে বেশ লাভ করেন সাগর। পরে বাড়ির পাশে নিজের দুই কাঠা জায়গায় ঘিরে সবজি বিক্রির পাশাপাশি মাশরুম চাষ শুরু করেন।

বর্তমানে দুই কাঠা জমির ওপরে টিন দিয়ে ঘর তৈরি করেছেন। ওই ঘরে কটের সুতো দিয়ে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে পলিথিন দিয়ে মোড়ানো ৩শ টি মাশরুম বীজ প্যাকেট (স্পন প্যাকেট)। সেই পলিথিনের গায়ে সূক্ষ্ম ছিদ্র দিয়ে সাদা আস্তরণে দেখা যাচ্ছে মাশরুম। সেখান থেকেই কেটে বাজারজাত বা বিক্রি করছেন তিনি।

প্রতিদিনই সাগরের মাশরুমের খামার আশপাশসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে দেখতে আসছেন অনেকেই। কেউ মাশরুম কিনে নিয়ে যাচ্ছেন, আবার কেউ পরামর্শ গ্রহণ করছেন। তার খামার দেখে যুবকরাও উদ্বুদ্ধ হচ্ছেন। অনেক অসুস্থ ব্যক্তি মাশরুম খেয়ে উপকার পাওয়ার কথা জানান। শহরের কয়েকটি রেস্টুরেন্ট ও কিছু ব্যক্তি তার নিয়মিত ক্রেতা।

মাশরুম খামারি সাগর আলী বলেন, ‘এবার খামারে ৩০০টি প্যাকেটে চাষ শুরু হয়েছে। ৫ কেজি ওজনের প্রতিটি প্যাকেটের বীজ, খড়কুটা ও কীটনাশকে খরচ পড়েছে প্রায় ৪০-৪৫ টাকা। তিন মাসে প্রতিটি প্যাকেট থেকে মাশরুম সংগ্রহ হবে প্রায় ৪ থেকে সাড়ে ৪ কেজি। যা পাইকারি বিক্রি হচ্ছে ২৫০ টাকা এবং খুচরা ৩০০ টাকা। ২৫০ টাকা হিসেবে ৩০০টি প্যাকেট থেকে আগামী তিন মাসে প্রায় ১,২০০ কেজি মাশরুম সংগ্রহ হবে, যার বাজার মূল্য প্রায় ৩ লাখ টাকা। এরই মধ্যে প্রায় ৯ হাজার টাকার বিক্রি করা হয়েছে। সবজির দোকান থেকে বিক্রি হচ্ছে। অনেকে ফোনে অর্ডার করেন। উৎপাদন যত বেশি হবে; বিক্রিও তত বাড়বে।’

মাশরুম চাষ নিয়ে তিনি বলেন, ‘মাশরুম চাষের প্রধান উপকরণ খড় ও বীজ (স্পন)। খড় ছোট ছোট করে কেটে গরম পানিতে সেদ্ধ করে পরে হালকা করে শুকাতে হয়। প্যাকেট প্রস্তুত করার সময় বীজ দিয়ে মুখ বেঁধে রেখে সুচ দিয়ে কয়েকটা ছিদ্র করতে হয়। প্যাকেটের মধ্যে ছত্রাক যেন আক্রমণ করতে না পারে, সে জন্য ছত্রাকনাশক দিতে হয়। বিশদিন পর প্রতিটি প্যাকেটে ৬-৭টি স্থানে প্রায় ১ ইঞ্চি পরিমাণ ছিদ্র বা প্যাকেটের গায়ে কেটে দিতে হবে যেন মাশরুমের গাছটি বেরিয়ে আসতে পারে। আরও ২০ দিন পর থেকে প্যাকেটের গায়ে পানি স্প্রে করতে হয় যেন মাশরুমের গাছ তাজা থাকে। একমাস পর থেকেই মাশরুম বিক্রির উপযোগী হয়। নিজেই এখন মাশরুমের বীজ (স্পন) তৈরি করছি।’

এবার মোটা অঙ্কের মুনাফা আশা করছেন সাগর। তবে মাশরুম চাষে এমন সম্ভাবনা বাস্তবায়নে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা ও প্রশিক্ষণ পেলে সারাবছরই চাষ করা সম্ভব বলে মনে করেন চাষিরা। এতে বেকারত্ব দূর হওয়ার পাশাপাশি অর্থনীতিতে অবদান রাখা সম্ভব।

মেয়ে সুরাইয়া আক্তার বলেন, ‘পড়াশোনার পাশাপাশি বাবাকে সকাল-বিকেল মাশরুমে স্প্রে করার জন্য পানি দিয়ে সহযোগিতা করি। এ ছাড়া মাশরুমের প্যাকেট তৈরিতে যে খড়ের প্রয়োজন হয়, তা ছোট ছোট করে কাটতে ও শুকাতে সাহায্য করি।’

নওগাঁ শহর থেকে মাশরুম কিনতে এসেছিলেন আব্দুল্লাহ আল মুসাব্বের। তিনি বলেন, স্বাস্থ্যের জন্য ভালো যে খাবারটা, মাশরুম তার মধ্যে অন্যতম। চোখের জন্য, ডায়াবেটিসের জন্য, ব্লাড প্রেসার কন্ট্রোলের জন্য বলেন সবদিক থেকে এই খাবারটা আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারী। কিন্তু আমাদের এলাকায় সেভাবে মাশরুম পাওয়া যায় না। আমার এক ছোট ভাই এখান থেকে মাশরুম কিনে খেয়ে ভালো লেগেছে। এজন্য তার কথা শুনে আমিও মাশরুম কিনতে এখানে এসেছি। এখানে এসে একদম ফ্রেশ টাটকা ১ কেজি মাশরুম কিনলাম। দামও কম আছে।

তার সঙ্গে এসেছিলেন মাহবুব আলম। তিনি বলেন, আমরা মাশরুম সুপার শপ থেকে কিনে খেয়েছি। এখন বাড়ির কাছে সাগর ভাই মাশরুম চাষ করেছেন। অবশ্যই এটি ভালো উদ্যোগ। তার এই মাশরুম চাষ দেখে অনেক বেকার যুবক উদ্বুদ্ধ হবে। এবং এর মধ্য দিয়ে স্থানীয় ভাবে একটি ভালো বাজার গড়ে উঠবে।

নওগাঁ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ আবু হোসেন বলেন, মাশরুম একটি পুষ্টিগুণ সম্পন্ন খাবার। মাশরুম ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপসহ বিভিন্ন রোগের জন্য অনেক উপকারী। বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায় এখন মাশরুম চাষ শুরু হয়েছে। চাইনিজ রেস্টুরেন্টসহ বিভিন্ন জায়গায় ব্যাপকভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে এবং মানুষজন ধীরে ধীরে এর ব্যবহারে অভ্যস্ত হচ্ছে। আমি মনে করি খুব অল্প জায়গায় ও অল্প পুঁজিতে মাশরুম চাষ করা যায় এবং এটি লাভজনক একটি ব্যবসা।

Leave A Reply

Your email address will not be published.