‘নিজের অক্ষমতা ঢাকতে সরকারের ওপরে দায় চাপাচ্ছে বিএনপি’

২৯৩
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সরকারের ওপর দায় চাপিয়ে নিজেদের আন্দোলন ও নির্বাচনের ব্যর্থতা-অযোগ্যতা এবং অক্ষমতা ঢাকার অপচেষ্টা করছে বিএনপি নেতারা। মঙ্গলবার (৫ এপ্রিল) তার সরকারি বাসভবনে ব্রিফিংকালে এসব কথা বলেন।

‘সরকার ব্যর্থতা ঢাকতে বিএনপি নেতাকর্মীদের বানোয়াট মামলায় কারাগারে আটক রাখতে বেপরোয়া হয়ে গেছে’ বিএনপি নেতাদের এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, এ অভিযোগ সরকারের বিরুদ্ধে চিরাচরিত মিথ্যাচার। সরকারের বিরুদ্ধে কোন ইস্যু খুঁজে পাচ্ছে না। একটা কিছু তো বলতে হবে, তাই এসব নেতিবাচক মিথ্যার আশ্রয় নিচ্ছে বিএনপি।

তিনি বলেন, আন্দোলন ও নির্বাচনে ব্যর্থতার জন্যই বিএনপির শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে তাদের কর্মীদের ক্ষোভ তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে। তাই দলীয় কর্মীদের রোষানল থেকে বাঁচতে বিএনপি নেতারা আবোল তাবোল বকছে। বিএনপি নেতাকর্মীরা একদিকে সন্ত্রাস সৃষ্টি করবে, জনগণের সম্পদ এবং শান্তি নষ্ট করবে, বাসে আগুন দিবে, নিজেরা নিজেরা মারামারি করবে, আর সরকার জনস্বার্থে ব্যবস্থা নিলে বলবে মিথ্যা বানোয়াট মামলায় তাদেরকে গ্রেফতার করা হচ্ছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশে আইন তার নিজস্ব গতিতে চলছে। আইন আদালতের ওপর সরকারের কোন হস্তক্ষেপ নেই। শেখ হাসিনার কাছে অপরাধীর রাজনৈতিক কোন পরিচয় নেই। দেশের মানুষ দেখেছে নিজ দলের সমর্থকরা, নেতারা অপরাধী হলে সরকার আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণে বাধা দেয়নি। আইনের গতিকে কোন বাধাগ্রস্ত করেনি।

সেতুমন্ত্রী বলেন, শুদ্ধি অভিযানে গ্রেফতার হয়েছে নিজ দলের অনেক নেতা। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সুনির্দিষ্ট অভিযোগে কোন অপরাধীকে গ্রেফতার করলেই বিএনপি ঢালাও অভিযোগ তোলেন এবং মিথ্যাচার করেন। তাহলে কি নিজ দলে চিহ্নিত অপরাধীদের পুষতে চান বিএনপি?

তিনি আরও বলেন, অপরাধী আর দুর্নীতিবাজ তোষণ এবং লালন নীতি বিএনপির রাজনৈতিক সংস্কৃতির অংশ। অপরাধী কিংবা অপকর্মকারীরা কখনো কোন দলের স্বার্থের পক্ষে ইতিবাচক ভূমিকা রাখে না। অপরাধীদের দল যদি অন্যের ক্ষতি করার জন্য পুষতে থাকে। তাহলে শেষ পর্যন্ত অপরাধীদের দ্বারা তাদের দলেরই ক্ষতি হয়।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, দুধ কলা দিয়ে সাপ পোষা যায় কিন্তু তার ছোবল থেকে রেহাই পাওয়া যায় না। তাহলে কী বিএনপি নিজ দলের অপরাধীদের পুষতে চান- বিএনপির নেতাদের কাছে প্রশ্ন রাখেন তিনি।

Comments are closed.