পুঠিয়ায় এক শিক্ষকের ৩ প্রতিষ্ঠানে চাকরির অভিযোগ

0 ৬৬

পুঠিয়া (রাজশাহী) প্রতিনিধি: রাজশাহীর পুঠিয়ার বিড়ালদহ মাজারে মোঃ এনতাজ আলী নামের একজন সহকারী শিক্ষক একই সাথে দুইটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এবং মাজার শরীফে কোরআন শিক্ষক হিসেবে চাকরি করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। তিনি বর্তমানে পুঠিয়া উপজেলা সদরে পুঠিয়া ইসলামীয়া মহিলা ডিগ্রী কলেজে প্রভাষক ও বানেশ্বর ইসলামিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক এবং বিড়ালদহ মাজারে কোরআন শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছেন।

মোঃ এনতাজ আলী গত কয়েক বছর ধরে এমন বিধি বহির্ভুত চাকরি করে আসছেন। এতে উপজেলা প্রশাসন, শিক্ষা অফিসার ও স্কুল কলেজের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক এবং অধ্যক্ষের সহযোগিতা করার অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, রাজশাহী জেলার পুঠিয়া উপজেলার পুঠিয়া ইসলামীয়া মহিলা ডিগ্রী কলেজে ইসলাম শিক্ষা (প্রভাষক) পদে ২০১৭ সাল থেকে চাকুরী করে আসছেন। অপরদিকে ২০১১ সাল থেকে উপজেলার বানেশ্বর ইসলামিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ইসলাম শিক্ষা পদে চাকুরী বেতন-ভাতা সুবিধা ভোগ করে আসছেন। এছাড়া বিড়ালদহ মাজারে কোরআন শিক্ষক হিসেবে চাকুরী বেতন-ভাতা সুবিধা ভোগ করে আসছেন।

বিধি মোতাবেক পূর্বের চাকরি থেকে অব্যাহতি নিয়ে নতুন চাকরিতে যোগদান করার কথা থাকলেও তিনি সেটি মানছেন না। অপরদিকে মোঃ এনতাজ আলী একই সাথে দুই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠদান করতে পারে না।
একদিকে যেমন বিধি লঙ্ঘন করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক সংকট তৈরি করেছেন। যার ফলে স্কুল ও কলেজে পাঠদান কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে।

শিক্ষক মোঃ এনতাজ আলী জানান, কলেজের বেতন করানোর জন্য এডক নিয়োগ দিয়েছে। আমি সেখানে যাই না। এ বিষয়ে কলেজের অধ্যক্ষের সাথে কথা বলেন। আর মাদ্রাসায় আমি কোরআন শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছি।

বানেশ্বর ইসলামিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আজাদ রহমান জানান, ২০১০ সাল থেকে আমাদের স্কুলের সহকারী শিক্ষক ইসলাম শিক্ষা পদে চাকুরী করেন আসছেন। নিয়ম মোতাবেক তিনি বেতন-ভাতা ভোগ করে আসছেন। তবে তিনি নিয়ম মোতাবেক স্কুলে আসেন। আর অন্য কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করে কি না আমার জানা নাই।

পুঠিয়া ইসলামীয়া মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ শিহাব উদ্দিন জানান, আমার সঠিক মনে নাই। তবে ৬ থেকে ৭ বছর পূর্ব থেকে মোঃ এনতাজ আলী ইসলাম শিক্ষা (প্রভাষক) পদে এডকে চাকুরী করে। কিন্তু তার এখনো এমপিও হয়নি। একই সাথে দুই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চাকুরী করার বিষয়ে জানাতে চাইলে তিনি বলে ফরমালিটি সিটে নামটি দেওয়া হয়েছে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার লায়লা আখতার জাহান জানান, বিষয়টি আমার জানা নাই। তবে প্রথমে স্কুলে চাকুরী পেয়েছে তাহলে সেইটায় সঠিক। আর পরবর্তীতে কলেজে চাকুরী সেটা অবৈধ্য হয়েছে। তবে বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও বিড়ালদহ মাজার পরিচালনা কমিটির সভাপতি একেএম নূর হোসেন নির্ঝর বলেন, মোঃ এনতাজ আলী মাজার পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। নিয়ম মোতাবেক সম্মানি ভাতা ভোগ করেন। এতে তো দোষের কিছু নাই।

Leave A Reply

Your email address will not be published.