প্রচন্ড তাপদহে থেমে নেই কৃষকরা চলছে বীজ বপন ধান কাটা মাড়ায়

0 ১২৬
মনিরুজ্জামান মনি, তানোর প্রতিনিধি: বেশ কয়েক দিন ধরে চলছে তীব্র তাপমাত্রা, ঘরে বাহিরে কোন স্বস্তি নেই, মাঠে বেশি সময় দাড়াতেই পরছেননা কৃষক শ্রমিকরা। কিন্ত খরতাপে ঘরে থাকলে তো আর চাষা বাদ হবে না। কোনকিছু আটকাতে পারে না রাজশাহীর তানোর উপজেলার কৃষক শ্রমিকদের। ভরদমে আলু পরবর্তী ধান কাটা মাড়ায় ও রোপা আমন চাষের জন্য চলছে বীজ বপনের কাজ।  বিশেষ করে সকাল ১০ টা থেকে বিকেল ৫ পর্যন্ত রাস্তায় তেমন ভাবে দেখা মিলছেনা জনসাধারনের। পিচঢালা রাস্তায় যেন শরীর পুড়ে যাচ্ছে।
গত বুধবার বাড়ি টিন দিয়ে ছাওয়ার জন্য উল্টিয়ে ফেলেন পৌর সদর গুবিরপাড়া গ্রামের হান্নান। মিস্ত্রী র কাজ করছেন সুবারন। কিন্তু প্রখর রোদে দাড়াতেই পারছেন না। শুক্রবারে কাজে এসে সকালেই শুয়ে পড়েন। আর কাজে হাত দিতে পারেন নি। তিনি জানান, বিগত ২০০৩ সাল থেকে মিস্ত্রির কাজ করছি। জৌষ্ঠ মাসে এমন প্রচন্ত রোদের প্রখরতা দেখিনি। টিন ছাওয়ার জন্য উপরে উঠলে মনে হচ্ছে মাথার কয়েক হাত উপরে সূর্য। অথচ কোটিকোটি মাইন উপরে সূর্য, সেই তাপ সহ্য হচ্ছে না। শরীর হাত পা মুখমন্ডল মনে হচ্ছে পুড়ে যাচ্ছে। আমার জীবনে চলতি বছরে রমজান মাসে ও মে জুনে দেখছি ভয়াবহ তাপ প্রবাহ। গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে বোমন ও পেশার লো হয়ে গেছে। আমার সাথে আরেকজন কাজ করছিল তার একই অবস্থা। কাজ করতে না পারলে সংসার ও কিস্তি মিটবে না।
জানা গেছে,  উপজেলা জুড়ে প্রতিটি মাঠে আলু পরবর্তী ধান কাটার ধুৃম পড়েছে। কিন্তু রোদের তাপে শ্রমিকরা এক ঘন্টা কাজ করলে দু ঘন্টা মাথায় বুকে পানি দিতে হচ্ছে। শরীরে থাকা সার্ট পরনের লুঙ্গি ঘামে ভিজে একাকার হয়ে পড়ছে।
শ্রমিক মুস্তফা জানান, রোদের তাপের কারনে ফজরের আযানের আগে ধান কাটা শুরু করছি। তখন আবার কোয়াশা পড়ছে। আরেক শ্রমিক মফিজ জানান, গরীবের কাজ না করলে ভাত জুটবেনা। তাপে পুড়ে হলেও কাজ করে সংসার পরিচালনা করতে হবে।
এদিকে উপজেলা জুড়ে আলুর জমিতে রোপন করা ধান পেকেছে, ইতিপূর্বেই কাটা শুরু হয়েছে। রয়েছে শ্রমিক সংকটের কারনে বেকায়দায় কৃষকরা। ধান মাড়ায় হপার হারভেস্টাকর মেশিন এসেছে অর্ধশতাধিকের মত। একবিঘায় মেশিনে নিম্মে১৫০০ থেকে উর্ধ্বে ২ হাজার টাকা খরচ হচ্ছে। আর শ্রমিক দিয়ে ৬-৭ হাজার টাকা খরচ। কিন্তু মেশিনে খড় পাচ্ছেনা, আর শ্রমিক কাটা মাড়ায় করলে খড় পাচ্ছেন। এছাড়াও রোপা আমন রোপনের জন্য বীজ বহন শুরু হয়ে গেছে।
গত বৃহস্পতিবার বীজ বপনের সময় বিহারইল মাঠে কথা হয় মাদারিপুর গ্রামের কৃষক সুফিয়ানের সাথে। তিনি জানান ১০ শতাংশের কিছু বেশি জমিতে স্বর্না জাতের ৪৫ কেজি বীজ বহন করছি। ৪৫ কেজি বীজ ভালো হলে ১০ বিঘা জমি রোপন করা যাবে। আমরা একটু আগাম বীজ বপন ও চাষ করে থাকি। তিনি আরো জানান বিঘায় ৪ কেজি বীজ লাগে। এক বিঘা জমিতে বীজ তৈরি থেকে উত্তোলন পর্যন্ত ৬-৭ হাজার টাকা খরচ হয়।
ওহিদুল নামের আরেক কৃষক সাড়ে তিন মন বীজ বপন করেছেন।
সুফিয়ান, আব্দুল সহ একাধিক কৃষকরা জানান, এক মন বীজের ধান কিনতে হচ্ছে ১৭০০-১৮০০ টাকা দিয়ে। অথচ একমন ধান বিক্রি হচ্ছে ১হাজার টাকায়।  কৃষক যাবে কোথায়, কেজি প্রতি সারের দাম ৫ টাকা বাড়িয়েছে সরকার। আবার পটাশ সার ১২০০-১৩০০ টাকা ছাড়া মিলছে না। সব দিক থেকে মরছে কৃষক। কিভাবে একজন প্রান্তিক কৃষক পথে বসবে সেটাই করা হচ্ছে।
উপজেলা কৃষি অফিসার সাইফুল্লাহ আহম্মেদ জানান, আরো এক সপ্তাহ বোরো ধান কাটা চলবে। তারপর থেকে যেটা কাটা হবে সেটা আউশ হিসেবে ধরা হবে। রোপা আমনের লক্ষমাত্রা ২২ হাজার ৪০০ হেক্টর। সে মোতাবেক ১১২০ হেক্টর জমিতে বীজের লক্ষমাত্রা, সে অনুপাতে ৮০০ মে:টন বীজের প্রয়োজন। তবে খরতাপের কারনে অবশ্য শ্রমিকদের মারাত্মক কষ্ট হলেও কৃষকরা শুকনো ঝরঝরে ধান ঘরে তুলতে পারছেন। এবার বোরোতে বাম্পার ফলন হয়েছে, তবে ফড়িয়া সিন্ডিকেট দাম কমছে, সে বিষয়ে বিপনন বিভাগকে অবহিত করা হয়েছে। অল্প সময়ের মধ্যে হাট বাজার, আড়ত ও চাতালে অভিযান পরিচালনা করবেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.