বগুড়ায় বর্ণিল আয়োজনে নববর্ষ উদযাপন

0 ৫২

দীপক কুমার সরকার, বগুড়া: “মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা, অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা” কবিগুরু বরীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গীতিকাব্য হৃদয়ে মূল প্রতিপাদ্য হিসেবে ধারণ করে চলে বাঙালির বাংলা নববর্ষবরণ উৎসব। তাইতো বর্ণিল আয়োজনের মধ্য দিয়ে বগুড়ায় বাংলা নববর্ষ-১৪৩১ উদযাপন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে ১৪ এপ্রিল(পহেলা বৈশাখ) রবিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে একটি আনন্দ শোভাযাত্রা শহরের বেশ কয়েকটি এলাকা পদক্ষিণ করে।

আনন্দ শোভাযাত্রায় ঢাক-ঢোলের তালে তালে নানা ধরনের প্রতীকী শিল্পকর্ম তুলে ধরা হয়। প্রত্যেকের হাতে, ভ্যানে, মাথায় বাঙালি সংস্কৃতির পরিচয়বাহী বিভিন্ন প্রতীকী উপকরণ, রং-বেরংয়ের নানা প্রাণির প্রতিকৃতি যেমন দোয়েল পাখি, হাতি, ঘোড়া, মাছ, পালকি, ঘোড়ার গাড়ি, মোরগের লড়াই, ময়ূর, পেঁচা প্রতিকৃতি, লাঠি খেলা ও সাপ খেলা ছিলো চোখে পড়ার মতো।

শোভাযাত্রায় অংশ নেন বগুড়া-৫ (শেরপুর-ধুনট) আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবর রহমান মজনু, বগুড়া-৬ সদর আসনের সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রাগেবুল আহসান রিপু, জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল ইসলাম, জেলা পুলিশ সুপার (অতিরিক্ত ডিআইজি পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত) সুদীপ কুমার চক্রবর্ত্তী, স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক মাসুম আলী বেগ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ মেজবাউল করিম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) নিলুফা ইয়াসমিন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) আফসানা ইয়াসমিন, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সুফিয়ান সফিক, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফিরোজা পারভীন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ জেলা শাখার সাবেক কমান্ডার রুহুল আমিন বাবলু, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হেফাজত আরা মিরাসহ জেলা প্রশাসন, সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।

এর আগে সকাল ৯ টায় বগুড়া পৌর পার্কে সাত দিনব্যাপী ৪৩তম বৈশাখী মেলা এবং শহীদ খোকন পার্কে ৭দিন ব্যাপী লোকজ মেলার উদ্বোধন করেন বগুড়া-৬ আসনের সংসদ সদস্য রাগেবুল আহসান রিপু। জেলা প্রশাসনের আয়োজনে ও জেলা বিসিক কার্যালয়ের সহযোগিতায় মেলায় ৫০টি স্টল স্থান পায়। মেলার উদ্বোধন শেষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। পরে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মনোজ্ঞা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করে।

বগুড়ার শেরপুরে এসো হে বৈশাখ এসো এসো, এই বাংলা গানের তালে তালে ডাকঢোল পিটিয়ে আনন্দ উল্লাসে শোভাযাত্রার মাধ্যমে বাংলা নববর্ষ ১৪৩১ উদযাপন করা হয়েছে।

একই দিনে সকাল নয়টার দিকে শেরপুর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনের উদ্যোগে উপজেলায় পহেলা বৈশাখের আনন্দ শোভাযাত্রা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আনন্দ শোভাযাত্রা উপজেলা থেকে বের হয়ে শেরপুর শহর প্রদক্ষিণ করেন।

আনন্দ শোভাযাত্রায় ঢাক-ঢোলের তালে তালে নানা ধরনের প্রতীকী শিল্পকর্ম তুলে ধরা হয়। এতে অংশগ্রহণকারীদের হাতে, ভ্যানে, মাথায় বাঙালি সংস্কৃতির পরিচয়বাহী বিভিন্ন প্রতীক, রঙ-বেরংয়ের নানা প্রাণীর প্রতিকৃতি যেমন ঘোড়া, হাতি, মাছ, পালকি, ঘোড়ার গাড়ি, প্যাঁচার প্রতিকৃতি, লাঙ্গল জোয়ালের সাজানো কৃষক ছিলো চোখে পড়ার মতো।

এর আগে শেরপুর উপজেলা চত্বরে পহেলা বৈশাখের আনন্দ শোভাযাত্রা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের নেতৃত্ব দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুমন জিহাদি, উপজেলার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান শাহ জামাল সিরাজি, সহকারী কমিশনার ভূমি এস এম রেজাউল করিম, থানার অফিসার ইনচার্জ রেজাউল করিম রেজা, শেরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুলতান মাহমুদ, শেরপুর উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা, সাংস্কৃতিককর্মী, সাংবাদিক, শহর ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ, ইউপি চেয়ারম্যান, সচিব, শিক্ষক- শিক্ষিকাসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও বাংলা নববর্ষবরণ উপলক্ষ্যে জেলা প্রশাসন, বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন, সরকারি আজিজুল হক কলেজ, পুলিশ লাইন্স স্কুল এন্ড কলেজসহ জেলার ১২টি উপজেলা প্রশাসন সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দিনব্যাপী নানা কর্মকা- ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

Leave A Reply

Your email address will not be published.