বঙ্গবন্ধু কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়েই জাতির পিতা হয়েছেন: আমু

106

বিডি সংবাদ টোয়েন্টিফোর ডটকম: আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আমির হোসেন আমু বলেছেন, ‘বঙ্গবন্ধু তার রাজনৈতিক চিন্তা-চেতনা, কর্মকাণ্ড এবং সংবিধানে যে জাতীয় চার মূলনীতি রচনা করেছেন তা আলোচনার মধ্য দিয়েই জাতির পিতা হিসেবে বাংলাদেশের মূল ধারায় চলে আসেন।’

বুধবার (১৫ জানুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ১৪ দল আয়োজিত মুজিববর্ষ উপলক্ষে বিভিন্ন পেশাজীবীর সাথে এক মতবিনিময় তিনি এসব কথা বলেন।

আমু বিএনপি-জামায়াতের নাম উল্লেখ না করে বলেন, ‘কারা কি মানল, না মানল এটা এখন দেখার ব্যাপার নয়। তার কারণ, একটি পরিবারের পাঁচ সন্তান থাকলে তার ভেতর একটা কুলাঙ্গারও থাকে এবং সেই কুলাঙ্গার সন্তান ভিত্তিতেই থাকে। তার কোন অস্তিত্ব থাকে না আল্টিমেটলি। পরিবারের কাছেও না, সমাজেও কাছে না।’

ভারতে রাজনৈতিক দলগুলোর সৌহার্দ্যের উদাহরণ দিয়ে বর্ষীয়ান এই রাজনীতিবিদ বলেন, ‘মহাত্মা গান্ধী যিনি ভারতের সাম্প্রদায়িকার বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেছেন। তাকে নাথুরাম মেরেছিল। কারণ তিনি (মাহাত্মা গান্ধী) রায়টের বিরুদ্ধে তখন একটা অবস্থান নিয়েছিলেন, সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছিলেন। সেই মহাত্মা গান্ধীর জন্মশতবার্ষিকী বা মৃতুবার্ষিকী বিজেপির মত একটি কঠিন সাম্প্রদায়িক শক্তিও পালন করছে।’

সাবেক শিল্পমন্ত্রী বলেন, ‘অন্তত আমাদের দেশের তথাকথিত ওই শক্তির (বিএনপি-জামায়াত) কোন চেতনা আসে না। অর্থ্যাৎ যে কুলাঙ্গার সে কুলাঙ্গারই থাকবে। বঙ্গবন্ধুর ছয় দফার প্রচারণা এবং তা পরবর্তীকালে তার কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে একটি জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি হয়েছিল সাড়ে সাত কোটি মানুষের মধ্যে।’

তিনি বলেন, ‘আজকে যদি আমরা তার (বঙ্গবন্ধু) এই জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে সেই কর্মকাণ্ডগুলি আবার তুলে ধরে আনতে পারি এবং আমরা যদি প্রমাণ করতে পারি যে, অসির চেয়েও মসির জোর বেশি। আমাদেরকে লেখনীর মাধ্যমে, আলোচনা-সেমিনারের মাধ্যমে বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে একটা গণজোয়ার-গণঅভ্যুর্থান সৃষ্টি করার মধ্য দিয়েই কিন্তু তারা আবার ভেসে যাবে। আবার নতুন করে সেই বাংলাদেশ সৃষ্টি হবে। সেই একাত্তর, বাহাত্তরের বাংলাদেশ। আবার আমরা সৃষ্টি করতে পারি এই কর্মসূচিগুলো সঠিকভাবে সক্রিয়ভাবে পালন করার মধ্য দিয়ে।’

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম মুজিববর্ষ উদযাপনের ১৪দলের কেন্দ্রীয় কর্মসূচি ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, ‘আগামী ১৭মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে সন্ধ্যা ৬টায় মানিক মিয়া এভিনিউ থেকে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তিরা মোমবাতি প্রজ্বলন করে ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবনে যাব মহামানবের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য। এই কর্মসূচি সারাদেশে একযোগে পালন করা হবে।’

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া।

এছাড়াও পেশাজীবী পরিষদের সভাপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য কামরুল আহসান খান, সাংবাদিক নেতা মনজুরুল আহসান বুলবুল, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতা নিম চন্দ্র ভৌমিক, ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন অব বাংলাদেশের সাবেক সভাপতি ও রাজউকের সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল হুদা, স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের নেতা অধ্যাপক আব্দুল মান্নান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

x