বড়াইগ্রামে দুইজনের যাবজ্জীবন ও একজনকে ১০ বছরের কারাদন্ড দিয়েছে আদালত

0 ১৪১

নাটোর প্রতিনিধি: নাটোরের বড়াইগ্রামে এক শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে সোহাগ ও সাগর নামে দুইজনের যাবজ্জীবন ও রনি নামে একজনকে ১০ বছরের কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। এ ছাড়াও যাবজ্জীবন দন্ডপ্রাপ্তদের প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানার আদেশ দেওয়া হয়।

মঙ্গলবার নাটোরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের বিচারক মোহম্মদ আব্দুর রহিম এই দন্ডাদেশ দেন। যাবজ্জীবন দন্ডপ্রাপ্তরা বড়াইগ্রামের ঢুলিয়া মোল্লাপাড়া মহল্লার আব্দুর করিমের ছেলে সোহাগ,মোঃ নিজামের ছেলে সাগর ও ১০ বছরের কারাদন্ডপ্রাপ্ত রনি একই এলাকার আকাইলী প্রামানিকের ছেলে।

মামলা সুত্রে জানা যায়,২০১৬ সালের ১০ এপ্রিল রাত ৯ টার দিকে এলাকার একটি শালিস বৈঠক চলছিল। সেখানে শিশুটি তার মায়ের সাথে উপস্থিত ছিল। এক পর্যায়ে শিশুটি তার সহপাঠিকে সাথে নিয়ে পাশের এক চানাচুরের দোকানে যায়। সেখান থেকে শিশুকে ডেকে নিয়ে যায় সোহাগ। পরে সোহাগ তার বন্ধু সাগর ও রনিকে সাথে নিয়ে জোর পূর্বক শিশুটির মুখ চেপে ধরে পাশের বিলের মধ্যে চলে যায়।

সেখানে তারা শিশুটিকে ধর্ষনের চেষ্টা চালায়। ্এ অবস্থায় শিশুটির সহপাঠি দৌড়ে গিয়ে শালিশের স্থানে থাকা তার বাবাবকে ঘটনাটি বলে। ঘটনা শুনে তারা টর্চ নিয়ে বিলের মধ্যে খোাঁজাখুজি এক পর্যায়ে শিশুর চিৎকারে সেখানে এগিয়ে তাদের দেখতে পায়। বেগতিক দেখে সোহাগ , সাগর ও রনি সেখান থেকে দৌড়ে পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় শিশুর মা পারভীন বেগম বাদী হয়ে সোহাগ,সাগর ও রনিকে অভিযুক্ত করে নাটোরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর আদালত বড়াইগ্রাম থানা পুলিশকে মামলাটি তদন্তের ভার দেন। পরে পুলিশ তদন্ত শেষে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট প্রদান করেন।

দীর্ঘ প্রায় ৭ বছর মামলার স্বাক্ষ্য প্রমান গ্রহণ শেষে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় আদালতের বিচারক সোহাগ ও সাগরকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড ও ২০ হাজার টাকা করে জরিমানার আদেশ দেন। অপর অভিযুক্ত রনিকে ১০ বছরের কারাদন্ডের আদেশ দেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.