মাহসা আমিনির মৃত্যুবার্ষিকীতে পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার নিন্দায় ইরান

0 ১৬৬
মাহসা আমিনির মৃত্যুর পর ইরানে গতবছর দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ। ছবিটি কুর্দিস্তানের আমিনির শহর শাকেজ থেকে তোলা। এএফপির ফাইল ছবি

ইরানের ওপর নতুন করে আরোপ করা নিষেধাজ্ঞাকে ‘অবৈধ’ উল্লেখ করে চিরশত্রু যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমা দেশগুলোর ভূমিকার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ইসলামি প্রজাতন্ত্রটি।

শুক্রবার (১৫ সেপ্টেম্বর) এক বিবৃতিতে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নাসের কানানি পশ্চিমা দেশগুলোর ‘অবৈধ’ ও ‘অকূটনৈতিক’ তৎপরতার তীব্র নিন্দা জানান। তিনি সরকার বিরোধী আন্দোলনের প্রতি সমর্থন জানিয়ে হস্তক্ষেপমূলক তৎপরতা ও বিবৃতি প্রদানকে ‘হাস্যকর’ ও ‘কপটতা’ হিসেবে বর্ণনা করেন।

কানানি বিবৃতিতে ইউরোপীয় কূটনীতিকদের হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, এ ধরনের অগঠনমূলক আচরণ তাদের স্বার্থ রক্ষা করে না।

শুক্রবারের নতুন নিষেধাজ্ঞায় ২৫ জন ইরানি কর্মকর্তা, তিনটি গণমাধ্যম ও একটি ইন্টারনেট সেন্সরশিপ প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। অভিযোগ করা হয়েছে যে, ওই সব ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান আমিনির মৃত্যুর পর বিক্ষোভে জড়িত লোকজনের ওপর নির্যাতনে সংশ্লিষ্ট ছিল। এদের বেশিরভাই হলেন ইরানি পুলিশের আঞ্চলিক কমান্ডার ও ইসলামি বিপ্লবি গার্ডের সদস্য।

নিষেধাজ্ঞা দেওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছেন ইরানের কারাগার প্রধান গুলামালি মোহাম্মদি। যুক্তরাষ্ট্র সরকারের অভিযোগ তিনি নির্যাতন ও ধর্ষণসহ গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের মতো তৎপরতার সঙ্গে জড়িত।

এছাড়া কালো তালিকাভুক্ত গণমাধ্যমের মধ্যে রয়েছে প্রেস টিভি, তাসনীম ও ফার্স নিউজ এজেন্সি।

ব্রিটিশ নিষেধাজ্ঞার তালিকায় রয়েছেন ইরানের সংস্কৃতিমন্ত্রী মোহাম্মদ মেহদি ইসমাইলি এবং তার ডেপুটি মোহাম্মদ হাসেমি। তাছাড়া তালিকায় আছেন তেহরানের মেয়র আলিরেজা জাকানি ও ইরানি পুলিশের মুখপাত্র সাইদ মোনতাজের আলমেহদি।ইউরোপীয় ইউনিয়ন যে নিষেধাজ্ঞার তালিকা করেছে তাতে আছেন ইরানের বিপ্লবি গার্ডের একজন কমান্ডার, দুজন আঞ্চলিক পুলিশ প্রধান ও একটি কারাগারের প্রধান। এসব কালো তালিকা কানাডা ও অস্ট্রেলিয়া সরকারের সঙ্গে সমন্বয় করে তৈরি করা হয়েছে।

গত বছর মাহসা আমিনির মৃত্যুর পর দেশজুড়ে সরকার বিরোধী প্রতিবাদ ও বিক্ষোভে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যসহ কয়েকশ মানুষ মারা যায়, পাশাপাশি গ্রেপ্তার করা হয় কয়েক হাজার ব্যক্তিকে। তেহরান এই সহিংসতার পেছনে বিদেশি সরকারের হাত রয়েছে বলে অভিযোগ করে আসছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.