রাবিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উদযাপিত

0 ৩৪৪

রাবি প্রতিনিধি: আজ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার ৭৭তম জন্মদিন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) এই দিনটি বিভিন্ন আয়োজন-অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে উদযাপন করা হয়। এদিন বেলা ১১টায় শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ সিনেট ভবনে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। এই আয়োজনে মুখ্য আলোচক হিসেবে ‘বঙ্গবন্ধু ও গণতান্ত্রিক সমাজতন্ত্র’ শীর্ষক বক্তৃতা দেন বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বিআইডিএস) এর মহাপরিচালক ড. বিনায়ক সেন। এই আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার এবং বিশেষ অতিথি ছিলেন কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. অবায়দুর রহমান প্রামানিক। সেখানে অন্যদের মধ্যে বঙ্গবন্ধু চেয়ার অধ্যাপক সনৎকুমার সাহাও বক্তৃতা দেন। উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক মো. হুমায়ুন কবীরের সভাপতিত্বে এই অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন রেজিস্ট্রার অধ্যাপক মো. আবদুস সালাম।

মুখ্য আলোচক ড. বিনায়ক সেন বলেন, শেখ হাসিনা যে সাহসী তাতে কারো সন্দেহ করার অবকাশ নেই। শেখ হাসিনার কাছ থেকে আরও অনেক কিছু পাওয়ার আছে বাংলাদেশের। আমি যখন বাংলাদেশের আগামী দশ বছরের কথা চিন্তা করি তখন আমি দল হিসেবে আওয়ামী লীগকে নিয়ে ভাবিনা। এটা আমার ব্যক্তিগত দুর্বলতা। ব্যক্তিকে কেন্দ্র করে তখন আমার চিন্তা আবর্তিত হতে থাকে। সেই ব্যক্তিটি এই মুহূর্তে আমি শেখ হাসিনা ছাড়া আর কাউকে পাইনা। বাংলাদেশ আজ যে জায়গায় এসে পৌঁছেছে তিনি ছাড়া সেখানে পৌঁছাতে পারতো না। আগামীতেও যে-ধরনের কর্ম পরিকল্পনা চলছে শেখ হাসিনা ছাড়া সেটাও বাস্তবায়ন করা খুবই কঠিন। কেননা পরাশক্তির প্রতিযোগিতা আমরা চোখের সামনে দেখতে পাচ্ছি। আমরা দেখতে পাচ্ছি রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধকে কেন্দ্র করে আবার কীভাবে সেই ঠান্ডা যুদ্ধ শুরু হয়েছে। ভারত-চীনের মাঝে অন্তঃদ্ব›দ্ব চলছে। এই চারটি শক্তিকে ব্যলেন্স করে আমাদের জাতীয় স্বার্থ রক্ষা করে বাংলাদেশকে আগামী একদশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া চারটিখানি কথা নয়। এক্ষেত্রে শেখ হাসিনা ছাড়া কাউকে খুঁজে পাইনা।
তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের অনেক উন্নয়ন হচ্ছে। পাশাপাশি কিছু বৈষম্যও বাড়ছে। এর মধ্যে অন্যতম হলো অর্থনৈতিক বৈষম্য। মানব উন্নয়নের ক্ষেত্রে শিক্ষা, স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে বৈষম্য হচ্ছে। এমনকি আঞ্চলিক বৈষম্যও বাড়ছে। সেই বৈষম্য মাঝে একটু কমে আসলেও এখন আবার বেড়েছে। পশ্চিমাঞ্চল-পূর্বাঞ্চলের মধ্যে বৈষম্য আছে। এসব বৈষম্য ছাড়াও সুশাসনের প্রতি, স্বাধীনতার ক্ষেত্রে অনেকগুলো প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। বর্তমান অবস্থা থেকে উত্তোরনের জন্য আমার কাছে মনে হয় বঙ্গবন্ধু ও গণতান্ত্রিক সমাজতন্ত্র বিষয়ক এ আলোচনা।
তিনি আরো বলেন, পুঁজিবাদ থেকে একসময় একচেটিয়া পুঁজিবাদ গড়ে ওঠে। কিন্তু পুঁজিবাদ এবং একচেটিয়া পুঁজিবাদ গ্রহণ করা দুটি ভিন্ন বিষয়। বঙ্গবন্ধুর অন্যতম বৈশিষ্ট্য ছিলো একচেটিয়া পুঁজিবাদ গ্রহণে সম্মতি না দেওয়া। এক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধু কোনো ছাড় দিতে রাজি ছিলেন না। কারণ পাকিস্তান আমলের ২২ পরিবার গড়ে ওঠার অভিজ্ঞতা তাঁর মনে দগ্ধভাবে গেঁথে ছিলো। বঙ্গবন্ধু একচেটিয়া পুঁজিবাদ গড়ে উঠতে দিলে তার মালিকরা  রাজনৈতিকভাবে প্রভাবশালী হয়ে উঠতো এবং ছোট, বড়, মাঝারি কোনো পুঁজিরই বিকাশ ঘটতো না।
প্রধান অতিথি উপাচার্য বলেন, আজ বাঙালির আশা-আকাক্সক্ষার মূর্তপ্রতীক বঙ্গবন্ধুতনয়া শেখ হাসিনার জন্মদিন। শেখ হাসিনা মানেই উন্নয়ন, শেখ হাসিনা মানেই আমাদের বেঁচে থাকার যে আলো, সে আলোর উজ্বল রশ্মি। তিনি ৪২ বছর ধরে কি দিয়েছেন তা বলতে হয়না। কারণ সূর্য উঠলে ঢোল পিটিয়ে বলতে হয়না সূর্য উঠেছে। এখানে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির ব্যাপার সূর্যটাকে কীভাবে দেখছি। উনি না থাকলে দেশ কোথায় যেতো তা বলা মুশকিল। ১৯৮১ সালের পর এসে উনি দেশের কল্যাণের জন্যে কী করেছেন সেটিও আপনি বলবেন। উনার আগামী যে পরিকল্পনা সেখানে একটা আগামীর দিশা আছে, সেটা আমাদের স্বীকার করতেই হবে। এখন শুধু আমাদের অপেক্ষা, তার সেই স্পর্ধিত বিষয়টি স্পর্শ  করা। আমরা তার খুব কাছাকাছি চলে এসেছি। ২০৪১ এর আগেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরেই আমরা একটি আলোকিত বাংলাদেশে চলে যাব।
অনুষ্ঠানের সভাপতি উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) মো. হুমায়ুন কবীর বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে আমরা বিভিন্নভাবে বলি উনি মানবতার মা, উনি আপোষহীন নেত্রী, উনি দেশরতœ, উনি গণতন্ত্রের মানসকন্যা অনেক সময় অনেক কথা বলি। আমরা ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্টের ঘটনা জানি। ৩ নভেম্বর জেল হত্যার ঘটনা আমরা জানি। ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার পরিকল্পনা মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন করে দেওয়ার চেষ্টার কথা জানি। সেসব ঘটনা সবচেয়ে বেশি যাকে আঘাত দিয়েছে, কষ্ট দিয়েছে তিনি আমাদের মানবতার মা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এত দুঃখ কষ্ট বুকে নিয়েও বাংলার মানুষকে অর্থনৈতিক মুক্তির পথে নিয়ে যাওয়ার জন্য, আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে জনসংযোগ প্রশাসক অধ্যাপক প্রদীপ কুমার পাণ্ডে, ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক মো. জাহাঙ্গীর আলম সাউদসহ প্রায় তিন শত শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও গবেষক উপস্থিত ছিলেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.