রাবিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটার সাক্ষাৎকার শুরু ১৮ আগস্ট

0 ৬৬

রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের সাক্ষাৎকার আগামী ১৮-২০ আগস্টের মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে। রোববার (৩০ জুলাই) দুপুরে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও নাতি-নাতনির নির্বাচন কমিটির সদস্য সচিব ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক মো. জাহাঙ্গীর আলম সাউদ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ছাত্র-ছাত্রী ভর্তির সাক্ষাৎকার আগামী ১৮-২০ আগস্ট সকাল সাড়ে ৯টা বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ সুখরঞ্জন ছাত্র শিক্ষক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে (টিএসসি) অনুষ্ঠিত হবে। এবারের সাক্ষাৎকারে প্রথম দিন ১৮ আগস্ট ক্রমিক নং ১- ৪০৪, দ্বিতীয় দিন ১৯ আগস্ট ক্রমিক নং ৪০৫-৮০৮ এবং ২০ আগস্ট ৮০৯-১২১২ রোল নম্বরের সাক্ষাৎকার নেওয়া হবে।

সাক্ষাৎকারের সময় প্রয়োজনীয় যেসব কাগজপত্র সঙ্গে আনতে হবে: ১. বীর মুক্তিযোদ্ধার পুত্র-কন্যাদের ক্ষেত্রে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার মূল সনদপত্র অথবা নম্বরপত্রসহ মূল রেজিস্ট্রেশন কার্ড ও ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র, সাবজেক্ট চয়েস ফরমের ফটোকপি এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিচিতির প্রমাণক হিসেবে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক ইস্যুকৃত ডিজিটাল সার্টিফিকেট/এমআইএস কপি (ওয়েব সাইট http://mis.molwa.gov.bd/freedom fighter-list থেকে) ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক প্রকাশিত (ওয়েব সাইট http://mis.molwa.gov.bd/combined-list থেকে) বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সমন্বিত তালিকার কপি (যে পাতায় মুক্তিযোদ্ধার নাম রয়েছে সেই পাতা) ডাউনলোড করে আনতে হবে।

২. নাতি-নাতনিদের ক্ষেত্রে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার মূল সনদপত্র অথবা নম্বরপত্রসহ মূল রেজিস্ট্রেশন কার্ড ও ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র, সাবজের চয়েস ফরমের ফটোকপি এবং বীর মুক্তিযোদ্ধার নাতি-নাতনি পরিচিতির প্রমাণক হিসেবে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট এলাকার মুক্তিযোদ্ধা সংসদের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা/জেলা প্রশাসকের সাম্প্রতিক প্রত্যয়নপত্র সঙ্গে আনতে হবে।

এছাড়া নাতি/নাতনি প্রমাণের জন্য দাদা/দাদী অথবা নানা/নানী এবং বাবা/মা-এর জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে আসতে হবে। পরীক্ষার্থীর মায়ের জাতীয় পরিচয়পত্রে স্বামীর নাম উল্লেখ থাকলে মায়ের জন্মনিবন্ধন কার্ডের কপি নিয়ে আসতে হবে। উল্লেখ্য যে, বীর মুক্তিযোদ্ধার পুত্র-কন্যা/নাতি-নাতনি উভয়ের ক্ষেত্রে উপরে বর্ণিত কাগজপত্রের ১ সেট ফটোকপি সাক্ষাৎকারের সময় জমা দিতে হবে।

৩. বীর মুক্তিযোদ্ধার পুত্র-কন্যা/নাতি-নাতনি কোটায় সাক্ষাৎকারের জন্য প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের তালিকা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েব সাইট www.ru.ac.bd তে পাওয়া যাবে।

উল্লেখ্য, প্রাথমিকভাবে সাক্ষাৎকারের জন্য নির্বাচিত কোনো শিক্ষার্থীর নাম একাধিক ইউনিটে থাকলে একবার সাক্ষাৎকারে অংশগ্রহণ করলেই সে সবকটি ইউনিটে উপস্থিত হয়েছে বলে বিবেচিত হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.