লারাদের হারিয়ে ফাইনালে সচিনরা

দুরন্ত রান তাড়া করেও ভারতীয় বোলারদের দুরন্ত প্রত্যাবর্তনে অল্পের জন্য ম্যাচ হারতে হয় ক্যারিবিয়ান লেজেন্ডসদের।

0 ৫১৬

উত্তেজক ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজ লেজেন্ডসদের ১২ রানে হারিয়ে রোড সেফটি ওয়ার্ল্ড সিরিজের ফাইনালে পৌঁছে গেল ইন্ডিয়া লেজেন্ডস। রায়পুরে প্রথম সেমিফাইনালে হাই-স্কোরিং ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে ২১৮ রান তোলে ইন্ডিয়া লেজেন্ডস। সৌজন্যে সচিন তেন্ডুলকর, যুবরাজ সিং, ইরফান পাঠান। জবাবে দুরন্ত রান তাড়া করেও ভারতীয় বোলারদের দুরন্ত প্রত্যাবর্তনে অল্পের জন্য ম্যাচ হারতে হয় ক্যারিবিয়ান লেজেন্ডসদের।

 

প্রথম সেমিফাইনালে এদিন টস জিতে ভারতকে ব্যাটিং’য়ে আমন্ত্রণ জানান ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক ব্রায়ান লারা। ঝোড়ো মেজাজেই ইনিংসের শুরুটা করেন বীরেন্দ্র সেহওয়াগ। প্রথম পাঁচ ওভারের মধ্যেই ভারতকে পঞ্চাশের গন্ডি পার করে দেন বীরু। ১৭ বলে ৩৫ রান করে ষষ্ঠ ওভারে আউট হন তিনি। দলের রান তখন ৫.৩ ওভারে ৫৬। এরপর মাস্টার ব্লাস্টারের সঙ্গে দ্বিতীয় উইকেটে ৫৩ রান যোগ করেন মহম্মদ কাইফ। ২১ বলে ২৭ রান করে ফেরেন কাইফ। ক্রিজে নামেন ইউসুফ পাঠান।

 

পরের ওভারে ৩৬ বলে ব্যক্তিগত অর্ধশতরান পূর্ণ করেন সচিন। ব্যাট হাতে ক্রিজে ঝড় তোলেন পাঠান। ৬টি চার এবং ৩টি ছয়ের সাহায্যে ৪২ বলে ৬৫ রানের ইনিংস খেলে ডাগআউটে ফেরেব সচিন। ১৪.১ ওভারে দলের রান ১৪০। বাকি সময়টা ঝোড়ো ব্যাটিং’য়ে বিপক্ষ বোলারদের কাছে ত্রাস হয়ে ওঠেন পাঠান-যুবি। ২০ বলে ২টি চার এবং ৩টি ছয়ে ৩৭ রানে অপরাজিত থাকেন পাঠান। যুবি এক ধাপ ওপরে। ২০ বলে যুবি নট-আউট থাকেন ৪৯ রানে। তাঁর ইনিংসে ছিল ১টি চার এবং ৬টি ছক্কা। যার মধ্যে ১৯তম ওভারে নাগামুত্তুকে ৪টি ছক্কা হাঁকান বাঁ-হাতি তারকা।

 

২০ ওভারে তিন উইকেট হারিয়ে ২১৮ তোলে ভারতের লেজেন্ডরা। জবাবে উইলিয়াম পার্কিনসন রানে ফিরলেও দ্বিতীয় উইকেটে ভারতীয় বোলারদের উপর চাপ সৃষ্টি করে ডোয়েন স্মিথ এবং নরসিং ডেওনারায়ণ। স্মিথ ৩৬ বলে ৬৩ রানে ফেরেন। রানের খাতা না খুলে দ্রুত ফিরে যান কার্ক এডওয়ার্ডস। এরপর ডেওনারায়ণের সঙ্গে জুটি বেঁধে ক্যারিবিয়ানদের জয়ের বৈতরনী পার করে দেওয়ার চেষ্টা করেন কিংবদন্তি লারা। শেষ ২ ওভারে জয়ের জন্য ২৭ রান প্রয়োজন ছিল উইন্ডিজ লেজেন্ডদের।

 

কিন্তু ১৯ তম ওভারের তৃতীয় বলে আউট হন লারা। ২৮ বলে ৪৬ রানে দুরন্ত ইনিংস খেলে আউট হল ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক। ওই ওভারেই টিনো বেস্টকে ফিরিয়ে ম্যাচ ভারতের ঝুলিতে এনে দেন বিনয় কুমার। অন্তিম ওভারে প্রয়োজন ছিল ১৭ রান। কিন্তু শেষ ওভারে ৪ রানের বেশি তুলতে পারেনি ক্যারিবিয়ানরা। ৪৪ বলে ৫৯ রান করে আউট হন ডেওনারায়ণ। শেষ অবধি ১২ রানে জিতে ফাইনাল নিশ্চিত করে ভারতের লেজেন্ডরা।

Leave A Reply

Your email address will not be published.