সত্য হওয়ার পথে ম্যাশের ভবিষ্যদ্বাণী!

0 ৯১
ফাইল ছবি

২৯ অক্টোবর ২০১৯। জুয়াড়ির প্রস্তাবে রাজি না হয়েও প্রস্তাবের তথ্য আইসিসি বা বিসিবির কাছে না জানানোয় দুই বছরের জন্য সব প্রকার ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ করেছিল আইসিসি। এর ভেতর এক বছর ছিল স্থগিত নিষেধাজ্ঞা।

সাকিবের নিষিদ্ধ হওয়ার ঘোষণা যেদিন পাওয়া গেলো সেদিন ক্রীড়াঙ্গনজুড়ে নেমে এসেছিল মধ্যরাতের নিস্তব্ধতা।

নিষেধাজ্ঞা পাওয়ার দিন সাকিবের উদ্দেশ্যে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেইজে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন দেশেসেরা সাবেক অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা।

ম্যাশ লিখেছিলেন, ‘দীর্ঘ ১৩ বছরের সহযোদ্ধার আজকের ঘটনায় নিশ্চিতভাবেই কিছু বিনিদ্র রাত কাটবে আমার। তবে কিছুদিন পর এটা ভেবেও শান্তিতে ঘুমাতে পারব যে, তার নেতৃত্বেই ২০২৩ সালে আমরা বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলব। কারণ, নামটি তো সাকিব আল হাসান…!!!’

সেদিন হয়তো বেশির ভাগ মানুষই মাশরাফীর সেই স্ট্যাটসটাকে নিছকই আবেগের বহিঃপ্রকাশ হিসেবেই নিয়েছিলেন। কিন্তু কে জানত চার বছর পর এসে ম্যাশের সেই ভবিষ্যদ্বাণী অক্ষরে অক্ষরে ফলে যাবে?

দরজায় কড়া নাড়ছে বিশ্বকাপ। চলতি বছরের অক্টোবরে পর্দা উঠবে ওয়ানডে বিশ্বকাপের।

বিশ্বকাপের আগে হবে ওয়ানডে ফরম্যাটের এশিয়া কাপ। ৩০ আগস্ট পর্দা উঠবে টুর্নামেন্টটির। ঠিক তার আগ মুহূর্তে ওয়ানডে দলের অধিনায়কের পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন তামিম ইকবাল। দলের স্বার্থে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে বৃহস্পতিবার (৩ আগস্ট) আনুষ্ঠানিকভাবে অধিনায়কত্ব থেকে ইস্তফা ও এশিয়া কাপে না খেলার ঘোষণা দেন।

ফলে বিশ্বকাপের আগ মুহূর্তে এক প্রকারে অভিভাবকশূন্য হয়ে পড়েছে জাতীয় দল।

তামিমের সরে যাওয়ার ফলে নতুন অধিনায়কের হাতে দায়িত্ব তুলে দেওয়ার প্রক্রিয়া ইতোমধ্যেই শুরু করেছে বোর্ড। অধিনায়কের দৌড়ে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি এগিয়ে রয়েছেন সাকিব আল হাসান।

বিশ্বকাপের মতো এতো বড় আসরে দলকে নেতৃত্ব দিতে এখনও উপযুক্ত হয়ে উঠেননি সহ-অধিনায়ক লিটন কুমার দাস। এমনটাই দাবি বোর্ড পরিচালক ও স্টেক হোল্ডারদের একটি বড় অংশের। সাকিবের হাতে দলকে তুলে দিতে চান তারা।

তাছাড়া বোর্ড আগে থেকেই সাকিবের সঙ্গে যোগাযোগ করে রেখেছিল অধিনায়কের ইস্যুতে। কেননা শঙ্কা ছিল তামিমের এশিয়া কাপে না খেলা নিয়ে। কিন্তু সে সময় সাকিব স্বল্প মেয়াদের অধিনায়কত্ব নিতে সাফ মানা করে দিয়েছিলেন। একইসঙ্গে দীর্ঘমেয়াদে দায়িত্ব দিতে চাইলে সেই দায়িত্ব বুঝে নেয়ার আগে বোর্ডকে বেশ কিছু শর্ত জুড়ে দিয়েছিলেন দেশসেরা এই অলরাউন্ডার। বোর্ড তখন সেই আলোচনা বেশিদূর এগিয়ে নিয়ে যায়নি।

কিন্তু দলের সাম্প্রতিক অবস্থা বিবেচনা করে অধিনায়কের আর্ম ব্যান্ডটা সাকিবের হাতে তুলে দেয়ার সম্ভাবনাই প্রবল।

Leave A Reply

Your email address will not be published.