সাকিবের মাইলফলকের ম্যাচে বরিশালের বিদায়

0 ১৬৬
রংপুর বনাম বরিশাল ম্যাচ। ছবি : বিসিবি

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) সপ্তম ক্রিকেটার হিসেবে শততম ম্যাচ খেলার মাইলফলক স্পর্শ করেছেন ফরচুন বরিশালের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। সাকিবের এমন মাইলফলকের ম্যাচে হারের স্বাদ পেল ফরচুন বরিশাল। রংপুরের কাছে হেরে বিদায় নিতে হলো সাকিবের দলকে।আজ রোববার (১২ ফেব্রুয়ারি) এলিমিনেটর ম্যাচে ৩ উইকেট হারিয়ে রংপুরকে ১৭১ রানের বড় সংগ্রহ ছুঁয়ে দেয় বরিশাল। জবাবে ৬ উইকেট হারিয়ে জয় তুলে নেয় রংপুর রাইডার্স।

মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক খেলতে থাকে বরিশালের দুই ওপেনার আন্দ্রে ফ্লেচার ও মেহেদি হাসান মিরাজ। পাওয়ার প্লের ছয় ওভারে স্কোরবোর্ডে ৪৬ রান তুলে বড় স্কোরের ইঙ্গিত দেয় বরিশাল। দলীয় ৪৬ রানে ফ্লেচারের বিদায়ে প্রথম উইকেট হারায় দলটি।

এরপর মিরাজের সঙ্গে বড় জুটি গড়ে তোলেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। মিরাজ-মাহমুদুল্লাহর ব্যাটে বড় স্কোরের পথে এগিয়ে যেতে থাকে বরিশাল। তবে, ১১৫ রানে মাহমুদুল্লাহর বিদায়ে দ্বিতীয় উইকেটের পতন হয় বরিশালের। ব্যক্তিগত ৩৪ রান করে সাজঘরে ফেরেন মাহমুদুল্লাহ।

রিয়াদের বিদায়ের পর ক্রিজে বেশিক্ষণ থিতু হতে পারেনি মিরাজও। ব্যক্তিগত ৬৯ রান করে বিদায় নেন এই ডানহাতি অলরাউন্ডার। দ্রুত সময়ে দুই সেট ব্যাটারকে হারিয়ে বরিশালের বড় স্কোরের আশা কিছুটা নিভে যায়। তবে, শেষদিকে করিম জানাত ও ভানুকা রাজাপাকশের ব্যাটে ভর করে বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় বরিশাল। রংপুরের হয়ে শানাকা দুটি ও রকিবুল একটি উইকেট নিয়েছেন।

১৭১ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই বড় ধাক্কা খায় রংপুর। প্রথম ওভারেই ওপেনার নাঈম শেখকে ফিরিয়ে দেন বরিশাল অধিনায়ক সাকিব। ৫ বল খেলে রানের খাতা না খুলেই সাজঘরে ফেরেন নাঈম। এরপর হাল ধরেন দুই ব্যাটার শামীম পাটোয়ারি ও রনি তালুকদার। শুরুতে উইকেট হারালেও পাওয়ার প্লে’র ছয় ওভারে স্কোরবোর্ডে ৫৫ রান তুলে বরিশালকে চাপে ফেলে রংপুর।

তবে দলীয় ৬১ রানে বিদায় নেন ২৯ রান করা ওপেনার রনি তালুকদার। এরপর রংপুর অধিনায়ক সোহান দুর্দান্ত খেলতে থাকা ব্যাটার শামীমকে নিয়ে জবাবটা ভালো মতোই দিচ্ছিল সোহান। ফের একবার ছন্দপতন। দলীয় ৯৬ রানে সাকিবের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হয়ে মাঠ ছাড়েন সোহান।

সোহানের বিদায়ের পর ক্যারিবীয় ব্যাটার নিকোলাস পুরানকে নিয়ে ধরে খেলতে থাকে শামীম। তবে পুরানও পারেনি নামের প্রতি সুবিচার করতে। দলীয় ১২২ রানে খালেদের বলে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন পুরান। এর দাসুন শানাকাকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ার চেষ্ট করে শামীম। তবে দুর্দান্ত খেলতে থাকা শামীমের বিদায়ে বড় ধাক্কা খায় রংপুর। ৫১ বলে ৭১ রান করে আউট হন শামীম।

এরপর লোয়ার অর্ডারে মেহেদি ও শানাকা মিলে দলকে জেতানোর চেষ্টা করে। খেলা এতটাই শ্বাসরুদ্ধকর হয়ে ওঠে যে, শেষ ওভারে জয়ের জন্য রংপুরের দরকার ছিল ৮ রান। শেষ ওভারের চাপ সামলে ৩ বল হাতে রেখেই জয় নিশ্চিত করে রংপুর।

বরিশালের হয়ে সাকিব দুটি, রাব্বি দুটি ও খালেদ দুটি করে উইকেট নিয়েছেন। এই জয়ে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার নিশ্চিত করল রংপুর। যেখানে তাদের প্রতিপক্ষ প্রথম কোয়ালিফায়ারে খেলা সিলেট-কুমিল্লার মধ্যে পরাজিত দল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ফরচুন বরিশাল : ২০ ওভারে ১৭০/৩ (মিরাজ ৬৯, ফ্লেচার ১২, মাহমুদুল্লাহ ৩৪, করিম ৩৩*, রাজাপাকশে ১৭*; রকিবুল ৪-০-৩২-১, মুজিবুর ৩-০-১৯-০, হাসান ৪-০-৪৪-০, ব্রাভো ৪-০-২৯-০, মেহেদি ২-০-২৩-০, শানাকা ৩-০-২৩-২)।

রংপুর রাইডার্স : ১৯.৩ ওভারে ১৭২/৬ (নাঈম ০, রনি ২৯, শামীম ৭১, সোহান ১৮, পুরান ৫, শানাকা ১৬*, ব্রাভো ২, মেহেদি ১৮*; সাকিব ৪-১-২৭-২, প্রিটোরিয়াস ৩-০-৩২-০, মিরাজ ২-০-২৭-০, সানজামুল ২-০-১৪-০, কামরুল ৩.৩-০-৩৩-২, করিম ১-০-১২-০, খালেদ ৪-০-২৪-২)।

ফল : রংপুর ৪ উইকেটে জয়ী।

Leave A Reply

Your email address will not be published.