সেমিতে রামোসের খেলা নিয়ে শঙ্কা

403

খেলাধুলা অনলাইন ডেস্ক : জুভেন্টাসের বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনালের দ্বিতীয় লেগের ম্যাচ হেরেও রিয়াল মাদ্রিদ চলে গেছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালে। সেমিফাইনালের লড়াইয়ে মাঠে নামার আগে অবশ্য একটা শঙ্কায় রয়েছে জিনেদিন জিদানের দল। নিয়মিত অধিনায়ক সার্জিও রামোসকেও শেষ চারের লড়াইয়ের প্রথম পর্বে নাও পেতে পারে রিয়াল!
৩-১ ব্যবধানে পরাজিত হলেও দুই লেগ মিলিয়ে এগিয়ে শেষ চারে পা রেখেছে মাদ্রিদের দলটি। চ্যাম্পিয়নস লিগের এই আসরে মোট তিন হলুদ কার্ড পাওয়ায় রামোস নামতে পারেননি সান্তিয়াগো বার্নাব্যুর দ্বিতীয় লেগের লড়াইয়ে। অবশ্য মাঠে ছিলেন তিনি। মাঠে থাকাটা দোষের কিছু নয় তবে বিপত্তিটা ঘটেছে অন্যখানে।
ম্যাচ শেষে নাকি রিয়াল মাদ্রিদ দলের টানেল ও ড্রেসিংরুমে দেখা গেছে দলপতিকে। আর যত সমস্যা এখানেই। নিয়ম অনুযায়ী ম্যাচে নিষিদ্ধ খেলোয়াড় শুধু দর্শক সারিতেই থাকতে পারবেন মাঠে। মাঠ, ডাগআউট, ড্রেসিংরুম কিংবা টানেল অন্য কোথাও ঢুকতে পারবেন না তিনি। অন্যথায় আরো এক ম্যাচ নিষিদ্ধ হবেন তিনি। ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে টিভি ক্যামেরায় পরিষ্কার রামোসকে দেখা গেছে বার্নাব্যুর ড্রেসিংরুমের টানেলে।
আরো এক ম্যাচ বসতে হলে অবশ্য রামোসের নামে অভিযোগ করতে হবে রেফারিকে। ম্যাচের প্রতিবেদনে রেফারি যদি উল্লেখ করেন মাদ্রিদ ডিফেন্ডারের কথা তবে সেমির প্রথম লেগে দেখা মিলছে না তাঁর এমনটা নিশ্চিত। স্প্যানিশ গণমাধ্যম ‘কোপ’ জানিয়েছে রামোসের নামটা নিজের প্রতিবেদনে লিখেছেন ম্যাচে বিতর্কিত এক পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেওয়া রেফারি মাইকেল অলিভার। ফলে পরের ম্যাচে দলনায়ককে ছাড়াই রিয়ালের মাঠে নামার সম্ভাবনাটা বেড়ে যাচ্ছে।
২০১৪ চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে নিষেধাজ্ঞার কারণে রিয়ালের দলে ছিলেন না মিডফিল্ডার জাবি এলানসো। তবে গ্যারেথ বেলের গোলের পর আর নিজেকে ধরে রাখতে পারেননি তিনি। দর্শকসারি থেকে সোজা মাঠের ভেতর ঢুকে সতীর্থদের সঙ্গে করেছেন উল্লাস। এ কারণে উয়েফা এলানসোকে নিষিদ্ধ করেছিল আরো এক ম্যাচ। এবার কি তাহলে সাবেক সতীর্থের পথেই হাঁটছেন রামোস! ব্রেকিংনিউজ/

x