স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে রুয়েটের কর্মচারীদের শীতবস্ত্র বিতরণ করলেন মেয়র লিটন

0 39

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয় (রুয়েট) এর উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে রুয়েটের অসহায় কর্মচারীদের মাঝে শীতবস্ত্র ও সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। রবিবার দুপুরে রুয়েট ক্যাফেটারিয়ায় এ উপলক্ষ্যে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। অনুষ্ঠানে রুয়েটের ১শ ৫জন কর্মচারীকে শীতবস্ত্র কম্বল ও সুরক্ষা সামগ্রী মাস্ক প্রদান করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র লিটন বলেন, ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস। ১৯৭২ সালের এই দিনে স্বাধীনতার মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের কারাগার হতে মুক্তিলাভ করে রক্তাক্ত ও সদ্য স্বাধীন যুদ্ধ-বিধস্ত এ বাংলাদেশে। ব্রিটিশ রাজকীয় বিমান বাহিনীর বাহনে চেপে মুক্ত বিহঙ্গের ন্যায় প্রিয় মাতৃভূমিতে অবতরণ করেন তিনি। তেজগাঁও বিমানবন্দরে বঙ্গবন্ধুর পদার্পণের সঙ্গে সঙ্গে সৃষ্টি এক আবেগঘন ও আনন্দমুখর মুহূর্ত। একদিকে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে স্বজন হারানোর বেদনা ও শোক অন্যদিকে নানা শংকা ও হতাশার মাঝে আলো হিসেবে আগমন ঘটে প্রিয় নেতার। তাই বিমানবন্দর হতে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সভামঞ্চ পর্যন্ত দেখা দেয় জনসমুদ্রের ঢেউ। সর্র্র্র্বকালের সর্ববৃহৎ এই সমাবেশে বঙ্গবন্ধু যে ভাষণ প্রদান করেন তা ছিল খুবই হৃদয়স্পর্শী।

 

৭ই মার্চ ১৯৭১ সালে রেস কোর্স ময়দানে তিনি স্বাধীনতা সংগ্রামের ডাক দিয়েছিলেন। সেদিন তিনি বজ্র কণ্ঠে উচ্চারণ করেন “এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম”। ২৫ মার্চ কালরাত্রে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী বাঙালি নিধনযজ্ঞের নীলনকশা অপারেশন সার্চলাইট এর মাধ্যমে গণহত্যা শুরু করে। এ প্রেক্ষাপটে ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা দেন এবং সর্বস্তরের জনগণকে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ার ডাক দেন। চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত তিনি লড়াই চালিয়ে যাওয়ার আহবান জানান।

 

সশস্ত্র সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত হলেও জাতির পিতার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মধ্যে দিয়েই বিজয়ের পূর্ণতা লাভ করে এ জাতি। ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি সদ্য স্বাধীন দেশে প্রত্যাবর্তনের পর রেসকোর্স ময়দানে সমবেত লাখো জনতার উদ্দেশ্যে বঙ্গবন্ধু বলেন ‘ আমার জীবনের সাধ আজ পূর্ণ হয়েছে। আমার সোনার বাংলা আজ স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র।

মেয়র আরো বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মাধ্যমে স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি তার আদর্শ মুছে দিতে এবং দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব খর্ব করতে অপচেষ্টা চালিয়েছিল। পরবর্তীতে ৩রা নভেম্বর জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করা হয়। এরপর মুক্তিযুদ্ধের গৌরবজ্জ্বল ইতিহাসকে বিকৃত করেছিল। দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামের পর বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ১৯৯৬ সালে সরকার গঠন করে।

সরকার গঠণের পর থেকেই বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে চলেছে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করছেন। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ রুয়েটের সভাপতি নাঈম রহমান নিবিড়ের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয় প্রফেসর ড. মোঃ রফিকুল ইসলাম সেখ। বক্তব্য দেন রুয়েটের ছাত্রকল্যাণ পরিচালক প্রফেসর ড. মোঃ রবিউল আওয়াল।

অনুষ্ঠানে রুয়েটের ছাত্রকল্যাণ উপ-পরিচালক প্রফেসর মামুনুর রশীদ, রুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী মাহফুজুর রহমান তপু ও রুয়েট ছাত্রলীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে মেয়র লিটন স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে রুয়েট ক্যাম্পাসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন। পুস্পস্তবক অর্পণকালে মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, রুয়েটের ভিসি প্রফেসর ড. মোঃ রফিকুল ইসলাম সেখ, রুয়েটের শিক্ষক ও ছাত্রলীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.