বগুড়ার শেরপুরে দেবোত্তর সম্পত্তি বিক্রি করে কোটিপতি সেবাইত পরিবার

737

বগুড়া প্রতিনিধি : বগুড়ার শেরপুরে পূর্ব পুরুষের উইল করে দেয়া দেবোত্তর সম্পত্তি বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে সেবাইত পরিবার ও প্রভাবশালী এক হিন্দু পরিবারের বিরুদ্ধে। মন্দিরের নামে সম্পত্তি নিজনামে হালনামে রেকর্ড ও কোটি কোটি টাকা আয় রোজগারসহ নানা অভিযোগ এমনকি দেবোত্তর সম্পত্তি রক্ষার দাবী উঠেছে সচেতনমহলে।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, শেরপুর পৌর শহরের শ্রীরামপুর পাড়ার স্বগীয় বংশীবদন সাহার ছেলে মুরলী ধর সাহা’র র্প্বূপুরুষের করে যাওয়া দুর্গাপুজাসহ অন্যান্য ধর্মীয় অনুষ্ঠানাদি প্রচলিত ছিল। সেই ধারাবাহিকতায় মুরলীধর সাহা সত্তর বছর বয়সে তার জীবনদশায় তৎকালীন বছর ১৯৫৩ সালের ডিসেম্বরে তার সমুদয় সম্পত্তির মধ্যে হরিসভার নামে প্রায় ২৫ একর, দুর্গাপুজার নামে ১৫ একর, লক্ষীনারায়ন পুজার নামে ১ একর ৬৪ শতকসহ অন্যান্য ধর্মীয় অনুষ্ঠানের নামে প্রায় ২৫ বিঘা সম্পত্তি শেরপুর উপজেলার আমইন ও শ্রীরামপুর মৌজাসহ অন্য অঞ্চলের বিভিন্ন মৌজার প্রায় ৯১.৩ সহশ্রাংশ সম্পত্তি ৬নং উইল (দলিল) করে দিয়ে যায়। উইলে ওই সম্পত্তি থেকে অজির্ত অর্থ শুধু ধর্মীয় অনুষ্ঠানের কাজেই ব্যবহৃত হবে এভাবেই যাহার বিবরনে(প্রোভেটে) বলা হয়েছে উল্লেখিত সম্পত্তি কোন নেগেটিভ(প্রতিপক্ষ)গন বিক্রি করতে পারবেনা। যদি কোন অসাধু উপায়ে বিক্রি করে তাহলে আইনী ব্যবস্থা নিতে পারবেন সেবাইত পরিবারের যেকোন সদস্য বা রাস্ট্রের অন্য কেউ। অথচ স্বর্গীয় মুরলী ধর সাহার ওয়ারিশ গনের মধ্যে মনোহর সাহা, কার্তিক চন্দ্র সাহা, গনেশ চন্দ্র সাহা গোপনে লক্ষীনারায়ন পুজার নামে সম্পত্তির মধ্যে শ্রীরামপুর মৌজার জেএলনং ১১০ এ ১.৬৪ এর কাতে ১৭/৫/১৯৭৮ দলিল নং ৪৯১৫ ও ৪৯১৪ এবং ২/১/১৯৮৩ সালে দলিল নং ২৪ এ মোট ৩৯ শতক জমি, হরিসভার নামে মোট সম্পত্তির মধ্যে ১৭ বিঘা জমি নিজ নামে হাল রেকর্ডপূর্ব বিক্রয়ের পায়তারা, উপজেলা আমইন মৌজার দুর্গাপুজার নামে সম্পত্তি বিক্রয় পূর্বক বাকি অংশ নিজনামে আর এস খতিয়ানভুক্ত করে। তবে শ্রীরামপুর মৌজার লক্ষীনারায়ন পুজার ১.৬৪ শতকের মধ্যে বর্তমানে ৩৯ শতাংশ রয়েছে। তাছাড়া এসব সম্পত্তি বিক্রি করার কাজে এখনও লিপ্ত রয়েছে মনোহর সাহার ছেলে উপজেলা হিন্দু নেতা হরিশংকর সাহা তার ওয়ারিশগন। ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের নামে উইল করা সম্পত্তি গোপনে কৌশলে বিক্রি করে কোটিপতি বানিয়ে নিয়েছে ওই পরিবারের অনেকেই।
স্বর্গীয় মুরলী ধর সাহা’র পরবর্তী ওয়ারিশগনের মধ্যে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হয়ে বলেন দেবোত্তর নামে উইল করা সম্পত্তি গোপনে বিক্রয় করছে সেবাইতনাম ধারী ওয়ারিশগণ। তাদের এহেন কর্মকান্ডের বিষয়ে প্রতিবাদ করলে তারা মামলা-হামলা নানা ধরণের হুমকী দিয়ে আসছে।
এদিকে দেবোত্তর সম্পত্তি ভোগদখলকারী পরিবারের সদস্য উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদের নেতা হরিশংকর সাহা দেবোত্তর সম্পত্তির বিক্রয়ের বিষয় অস্বীকার করেন এবং ওই সম্পত্তিগুলোর কিছু অংশ ভুয়া কাগজ দেখিয়ে প্রতিপক্ষরা বেদখল দেয়ার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ তুলে জানান। এদিকে দেবোত্তর সম্পত্তি রক্ষার দাবিতে সরকারের সংশ্লিস্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন সচেতনমহল।

x