রৌমারীতে চোরাচালানের জেরে মারপিটে আহত-৬

0 ৩১৫

রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: চোরাচালানের জেরে দফায় দফায় বাড়িতে হামলায় আহত-৬, বিজিবি’র অভিযানে ভারতীয় শার্টপিচ উদ্ধার ও থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন নির্যাতিত পরিবার। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার দুপুরের দিকে রৌমারী উপজেলার রৌমারী সদর ইউনিয়নের নওদাপাড়া গ্রামে।

অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আলম মিয়া ও দছিজল হক এর গ্রুপে দীর্ঘদিন থেকে মাদকসহ ভারতীয় বিভিন্ন পণ্যের ব্যবসা করে আসছে। ঘটনার দিন দছিজল তার ঘরে রাখা ভ্রাতীয় অবৈধ মালামাল বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় পাচার করতে না পারায় একই গ্রামের আব্দুস সবুর ফক্কু নামের একজনকে সন্দেহ করে।

এতে দছিজল ও তার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে ফক্কু ও তার ছোট ভাই আলমকে উদ্দেশ্য করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও নানা ধরনের হুমকি দিতে থাকে। এ নিয়ে উভয়ে বাকবিতন্ডতার একপর্যায় মৃতু নওয়াব আলীর ছেলে দছিজল হকসহ ৮/১০ জনের একটি দল সংঘবদ্ধ হয়ে হাতে লাঠিসোঠা নিয়ে ফক্কু ও তার ভাই আলমের বাড়িতে অতর্কিত ভাবে হামলা চালায়।

এসময় আলম (৩৫) ও তার স্ত্রী আরজিনা খাতুন (২৮), তার ভাবি মিনি খাতুন (৪০)সহ ৬জন আহত হয়। পরে স্থানীয়রা আহত অবস্থায় তাদেরকে উদ্ধার করে রৌমারী হাসপাতালে ভর্তি করেন এবং প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে চলে যান।

অপরদিকে চোরাচালানের বিষয়টি হিজলামারী ও বাংলাবাজার ক্যাম্পের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবি জানতে পারেন এবং ওই গ্রামে দফায় দফায় অভিযান চালান। এসময় নওদাপাড়া গ্রামের জিল্লুর রহমান ও নাছির এর বাড়িতে অভিযান চালিয়ে শার্ট পিচের ৪টি গাইড উদ্ধার করেন। পরে আটককৃত গাইড রৌমারী শুল্ক গোদামে জমা দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, দছিজল হকের একাধীক মাদক মামলা রয়েছে এবং কারাগারে সাজাভোগকারি আসামী এবং তার ছোট ভাই কছিবর রহমান মাদক পাচার করার সময় ভারতীয় বিএসএফের হাতে আটক হয় এবং মামলাসহ ভারতীয় কারাগারে দীর্ঘদিন কারাবাস ছিলেন। বর্তমানে বাংলাদেশেও তার নামে একাধীক মামলা রয়েছে।

জামালপুর ৩৫ ব্যাটালিয়ন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বিজিবি’র সরকারি নম্বরে ফোন দিলে কথা বলা সম্ভব হয়নি।
রৌমারী থানার অফিসার ইনচার্জ রুপ কুমার সরকার জানান, এ ঘটনায় অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.